পাতা:আনন্দ রহো.djvu/৫৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


লহ-কি বল্লি নিজ কৰ্ম্মোচিৎ ফল পা ! ( প্রস্থান ) নার—মনুয্যের জীবন আশা কি এত প্রবল বা আমারই স্থান প্রাণ, যে লহন। আমায় ভয় প্রদর্শন করে গেল। যমুনা ! গুৰুদেবের . মৃত্যুকালে তোমায় কাদতে দেখেছি ; অমর এ কারাগারে ও সাধ হয়, যে যখন শুনবে আমি নিৰুদেশ, সেই বারি এক বিন্দু দিও, আমার তাপিত প্রেতাত্মা শীতল হবে ? ( নেপথ্যে—“ত্যানন্দ রহে ! আনন্দ রহে' ! ! যমু—এ ষে বড় অন্ধকার । ) ( বালক-বেশে যমুনা, ও বেতালের প্রবেশ ) যমু—প্রহরীর কোথা ? বেত—এর সব ঘূমিয়ে, ( দেওয়ালে চাবি দেখাইয়া ) আমি চল্লেম, এই চাবি নাও, এই চরিতে খুলে যাবে। আর যদি পথ না চিনতে পার ঐ ঘরের ছাদে হাত বুলিয়ে দেখো পেরেক আছে, সেই পেরেকটা টেনে খস করে খুলে যাবে । এখানে এমন খারাপ দেখছে, তার পরে ও পরে উঠেই দেখতে পাবে কেমন বাড়ী, তার পর বাগান দিয়ে রাস্তায় পড়বে, আমি চল্ল ম; “আনন্দ রহে ! তানন্দ রহে|” !! ( প্রস্থান ) যমু—মোহন চল যদি পালাবার উপায় থাকে তো এই । . নারা—যমুনা ! তুমি হেথা ! তুমি ও কি বন্দি, না এও আকবারের ছল ? যমু—আমায় তাবিশ্বাস করেন, অনেক দিন কোন সংবাদ না পেয়ে রাজপুতান হতে দিল্লী এলেম, শুনলেম যে তুমি কারাগারে উন্মাদ অবস্থায় অবস্থান কচ্চে, মানসিংহের সহিত যুদ্ধ চাও, কোথায় আছ কিছুই স্থির কতে পাল্লেম না, পাগলের সঙ্গে দেখা হলো, সেই তামায় এস্থানে নিয়ে এল ! ( নেপথ্যে–১ম প্রহরী—তুই বেটাও যেমন—পাগল, বেটা ভাবার লোহার গরাদে ভাঙ্গবে ; ঘুমুচ্ছিলুম ) *