পাতা:আমার বাল্যকথা - সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ठां भी ब्र वां अ क थे। না। তিনি বল্লেন যে, তিনি গান শিখবার জন্য একবার একজন কালোয়াতের কাছে গিয়েছিলেন, তাতে কালোয়াত বলেন যে, তিনি ছয় মাস পর্যন্ত সপ্তাহে দুই তিন দিন করে তঁর কাছে এসে গান শিখলে পর তিনি বলতে পারবেন যে এই ছাত্র সঙ্গীত-বিদ্যা শিখবার উপযুক্ত কি না এবং তারপর একাদিক্ৰমে পাঁচ বৎসর কাল রীতিমত শিক্ষা করলে তবে পারদর্শী হতে পারবেন। এই কথা শুনে প্রোফেসার উইলসন সেইখানেই ক্ষান্ত দিলেন। সঙ্গীত-রত্নাকর প্রভৃতি বিখ্যাত সঙ্গীত পুস্তকগুলি লাইব্রেরীতে দেখে আমার বড়ই লোভ হত শিখবার জন্য, কিন্তু প্রোফেসার উইলসনের মুখে ঐ কথা শুনে পৰ্যন্ত আমাকেও ইচ্ছা দমন করতে হল । তোমাদের ঠাকুরপরিবারের মধ্যে আর একজন সঙ্গীত শাস্ত্রের প্রধান পৃষ্ঠপোষক আছেন—তিনি হচ্ছেন রাজা সৌরীন্দ্রমোহন ঠাকুর। “তোমার পিতামহ দ্বারকানাথ খুব বুদ্ধিমান লোক ছিলেন। কেন জানি না, তিনি ব্ৰাহ্মণকুলকে বিশেষ শ্ৰদ্ধার চক্ষে দেখতেন না এবং একদিন যখন আমি তাকে জিজ্ঞাসা করলাম যে, দেশে ফিরে গিয়ে তঁকে প্ৰায়শ্চিত্ত করতে হবে কি না, তিনি হেসে বল্লেন, “আমি তো চিরকাল বহুতর ব্ৰাহ্মণকে পোষণ করে আসছি, সেই আমার পক্ষে যথেষ্ট প্ৰায়শ্চিত্ত ।” কিন্তু তিনি যে কেবল দেশীয় ব্ৰাহ্মণদেরই হীন চক্ষে দেখতেন তা নয়-তিনি যাদের নামকরণ করেছিলেন ‘কালো কোট পরা বিলাতী ব্ৰাহ্মণ', - তাদেরও সমান নীচ চক্ষে দেখতেন। যদিও তিনি ইংরাজদের সকল বিষয়েই প্ৰশংসা করিতেন, কিন্তু পাদ্রিকুলের কোন নিন্দাবাদ বা লজ্জাজনক ব্যবহারের কথা জানাতে পারলে তিনি ভারি আমোদ বোধ করতেন। তিনি অনেকগুলি রাজনৈতিক ও পারমার্থিক সংবাদপত্র পড়তেন। র্তার একখানি খাতা ছিল যার মধ্যে তিনি অতি যত্ন সহকারে পাদ্রিদের নিন্দাজনক নানা কথা লিখে রাখতেন। সে এক অদ্ভুত সংগ্ৰহঅনেক সময় আমি ভাবি যে সে খােতাখানির কি দশা হল । তোমার