পাতা:আমার বাল্যকথা - সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথের দ্বিতীয় পুত্ৰ সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর উনবিংশ শতাব্দীর বাংলার রেনেসঁার একটি স্মরণীয় নাম। নারীর জীবনকে বন্ধনমুক্ত করে তাকে পূৰ্ণ মৰ্যাদায় প্রতিষ্ঠিত করতে যারা সমস্ত সামাজিক প্ৰতিকূলতাকে উপেক্ষা করে। কাজ করে গেছেন। রামমোহন রায় ও ঈশ্বরচন্দ্ৰ বিদ্যাসাগরের পরে তাদের অন্যতম হচ্ছেন সত্যেন্দ্ৰনাথ ঠাকুর। সত্যেন্দ্ৰনাথ ছিলেন প্ৰথম ভারতীয় আই-সি-এস । কিন্তু আই-সি-এস বলতে যে ধরণের লোক আমাদের মনের চোখে ভেসে ওঠে সত্যেন্দ্ৰনাথ ছিলেন। তার থেকে সম্পূর্ণ আলাদা জাতের মানুষ। মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথের অনুপ্রেরণায় ও সাহায্যে যে হিন্দুমেলা ১৮৬১ খৃষ্টাব্দে প্ৰতিষ্ঠিত হয় সেই প্ৰতিষ্ঠানের সঙ্গে সে যুগের মনীষী ব্যক্তিরা-রাজনারায়ণ বসু, অক্ষয় দত্ত, দ্বিজেন্দ্রনাথ ঠাকুর প্রভৃতি যুক্ত ছিলেন। হিন্দুমেলাই হচ্ছে জাতীয়তাবোধ উন্মেষ করবার প্রথম প্রচেষ্টা আমাদের দেশে। এই হিন্দুমেলায় সত্যেন্দ্রনাথ রচিত "গাও ভারতের জয়, হোক ভারতের জয়’ গানটি গীত হয়। এই গানটি সম্বন্ধে বঙ্কিমচন্দ্ৰ বঙ্গদর্শনে লেখেন “সত্যেন্দ্ৰবাবু আর কিছু লিখুন বা না-ই লিখুন এই গানটিতে তিনি বঙ্গসাহিত্যে অমর হইয়া থাকিবেন । এই মহাগীত ভারতের সর্বত্ৰ গীত হউক। হিমালয়-কন্দরে প্রতিধ্বনিত হউক । গঙ্গা, যমুনা, সিন্ধু, গোদাবরী অটে বৃক্ষে বৃক্ষে মর্মরিত হউক। পূর্ব-পশ্চিম সাগরের গভীর গর্জনে মন্দ্রীভূত হউক। এই বিংশতি কোটি ভারতবাসীর হৃদয়যন্ত্র ইহার সঙ্গে বাজিতে থাকুক।” সত্যেন্দ্ৰনাথ ছিলেন তেজস্বী, সত্যসন্ধ দেশপ্ৰেমিক পুরুষ। তার কর্মজীবন বাংলার বাইরে মহারাষ্ট্রে ও গুজরাটে অতিবাহিত হয়। মহারাষ্ট্রের মহামতি BtBDD Dg DBLD SBBDD DBDDD S BuDueu DBDD S C KBDK ংস্কারকেরা তার বন্ধু। বাংলার নব-জাগৃতি আন্দোলনের সঙ্গে মহারাষ্ট্রের ও গুজরাটের নব-জাগরণের সংযোগ স্থাপনের মিলন সেতু ছিলেন সত্যেন্দ্রনাথ। /