পাতা:আমার বাল্যকথা - সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৬৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


राष्ट्राम ছেলেবেলায় আমাদের ব্যায়াম চর্চার অভাব ছিল না । ভোরে উঠে যোড়ার্সাকো থেকে গড়ের মাঠ বরাহনগর প্রভৃতি দূর দূর পাল্লা * TSCG Críosta oifigir i & eilsiltír Morning Walkতাছাড়া ঘোড়ায় চড়া, Cricket, সঁাতার দেওয়া এ সব ছিল । আমাদের বাড়ীতে একটা পুকুর ছিল, তাতে আমরা অনেক সময় সঁতার দিতে যৌতুম। বাজী রেখে সঁাতার দেওয়া আমাদের এক রকম খেলা ছিল আমরা তিন ভায়ে মিলে যৌতুম - কলার গাত আমাদের ভেলা । সেই ভেলায় চড়ে মাঝখান পর্যন্ত গিয়ে দেখা যেত কে কাকে সিংহাসনচ্যুত করতে পারে। সেই কলার বাহন কেড়ে নেওয়া চাইআরোহী সাধ্যমত চেষ্টা করছে আততায়ীকে হটিয়ে দিতে-চোখে জল ছিটিয়ে হোক আর মে কোন উপায়েই তোক তার আক্রমণ হতে আপনাকে রক্ষা করতে হবে।-বলপূর্বক সেই কলাবাহন যে দখল করতে পারবে তারই জিৎ । এই রকম সাঁতারে আমরা খুব পরিপক্ক হয়ে উঠেছিলুম। বাবামশায়ের সঙ্গে যখন গঙ্গায় ব্যাড়াতে যে তুমি • খন সঁাতার দিয়ে সুমানে আমার বিশেষ আমোদ হত। আমি সঁাতার দিতে দিতে অনেক দূর পর্যন্ত চলে যৌতুম বাবামশায় তাতে কোন আপত্তি করতেন না, বোধ করি। যদিও এক একবার তঁর মনটা অস্থির হয়ে পড়ত। বড়দাদা সঁতারে সর্বাপেক্ষা মজবুত ছিলেন। তার রেখাক্ষরের মত সঁতারেও তিনি যে কত রকম কারাদানী করতেন তার ঠিক নেই। যখন গঙ্গার ধারের বাগানে থাকতেন তখন মাঝে মাঝে সঁতার দিয়ে গঙ্গই পার হতেন ; আর সকলে ভয়ে অস্থির হয়ে °फुङ । হীরাসিং বলে এক পালওয়ানের কাছে আমরা কুস্তী শিখাতুম, -