পাতা:আমি শুধু একা - বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/২৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পার হবারও উপায় নেই। গাড়ি মানুষ গিসগিস করছে। বসন্তবাবুর দাঁড়াতে কষ্ট হয়, বয়স হয়েছে। পা দুটাে টনটন করে দাঁড়ালে, বাতের পুরোনো ব্যথাটা আবার মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। তবু চলাফেরা করলে এটা ততটা জানান দেয় না। দাঁড়িয়ে থাকলে কটকটিয়ে ওঠে বেদনােটা। বসন্তবাবু তাই ধীরপদে চলার চেষ্টা করেন। জনস্রোত চলেছে। নানা ফেস্টুনি-ব্যানার নিয়ে চীৎকার করতে করতে চলেছে। আপিসের বাবুরা রাস্তা জুড়ে। ওই চলমান শোভাযাত্রার মধ্যে একটু ফাক পেয়েই বসন্তবাবু তার মধ্যে দিয়ে রাস্তা পার হতে যাবেন হঠাৎ তার হাতটা কে খপ করে ধরে ফেলে। লাফ দিয়ে এসে। অতর্কিত ধাক্কায় হাতের লাঠিটা ছিটকে পড়েছে রাস্তায়। তিনিও কোনরকমে পড়তে পড়তে রয়ে গেছেন। একটা ছেলে তার এইভাবে বাস্তা পার হবার চেষ্টাটাকে আমাজনীয় অপরাধ মনে করে গর্জে ওঠে। ও যেন এদের মিছিল ভাঙ্গাবার চেষ্টা করেছে। ইচ্ছে করে। ওরা গর্জে ওঠেধর ব্যাটাকে । ততক্ষণে একটি ছেলে তাকে হাত ধরে হিড়হিড় করে ওই লাইনের সঙ্গে টেনে নিয়ে চলেছে জোর করে। গর্জায় সে। —মিছিল যাচ্ছে, বুড়ো শয়তান চােখে দেখতে পাও না ? মিছিলের মধ্যে দিয়ে ঠেলে চলেছে ওপারে। মারবাে এ্যাক থাপাপড়। 心 আশপাশ থেকে উত্তেজিত শোভাযাত্রীরাও যোগান দেয়। --দালাল ব্যাটা। দাও। ওটার পিঠে কষে দু’ঘা বসিয়ে। ঠাণ্ডা করে দাও। বাসস্তবাবু ওদের প্রচণ্ড টানে ছিটকে পড়লেন, কোনরকমে আর্তনাদ করে বলেন কাতর স্বরে ওদের উদ্দেশ্যে। – —জানতাম না বাবা। অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে পাগুলো টাটিয়ে গেছল। তাই ভাবলাম রাস্তা পার হয়ে নিই, দেরী হয়ে যাচ্ছিল। --সািট আপ! আবার বচন ঝাড়া হচ্ছে? বুড়ো ভাম কোথাকার। চলো—চলো এইবার টেনে নিয়ে যাবো তোমাকে এই মিছিলের সঙ্গে।। চলো দু-চারজন পথচারীও দেখছে ব্যাপারটা। নিরীহ একটা বুড়ো মানুষকে ধরে ওরা অপমান করছে, ধাক্কাও দিয়েছে। কি ভেবে সেই বীর তরুণ বসস্তবাবুকে শাসায় কঠিন 22 ! vo