পাতা:আমি শুধু একা - বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/৫৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নিতাই এর বাবা ওই গাড়িতে চেপে গেছল আর ফিরে আসে নি, ওঘরের মধু সাঁতারার বীে ছেলে হবার সময়ও এ্যাম্বুলেন্সে চড়ে গেছিল। তাই সকলেই গাড়ি থামার শব্দে কোন এমনি খারাপ ব্যাপার ভেবেই বের হয়ে আসে। সুধাময়ী ময়দা মাখা হাতেই চমকে ওঠে। সেবার অশোক কোথায় মিটিং-এ লাঠি খেয়ে হাসপাতালে গেছিল। সেখান থেকে কারা ট্যাক্সিতে করে পৌঁছে দিয়েছিল তাকে ব্যাণ্ডেজ বাধা অবস্থায়। সুধাময়ীর মনটা ভালো নেই। লতিকার কথাগুলোও তার মনে একটা নীরব প্রশ্ন তুলেছে। তার মাঝে গাড়ি থামার শব্দে হ'কচাকিয়ে বাইরে আসে। সুধাময়ী। বুক কঁপিছে . তার কি ভাবনায় । ও ঠিক বিশ্বাস করতে পারে না। একটা ঝকঝকে গাড়ি এসে থেমেছে তাদের বাড়ির দরজায়। তার থেকে নামছে বসন্তবাবু, সুধাময়ী ভয় জড়ানো চোখে দেখছে তাকে। নিশ্চিন্ত হয় সে-না! কোন কিছুই হয় নি। অন্তত মানুষটা নেমে এগিয়ে আসছে। সুস্থই আছে। ড্রাইভার গাড়িটা মাঠে ঘুরিয়ে নিয়ে চলে গেল। বসন্তবাবু ওদের দেখে বলেন,--- কিগো ? সুধাময়ী তখনও যেন বিশ্বাস করতে পারে না। বসন্তবাবু আজ ওবেলায় রজনীর ওখানের অপমানটা ভুলেছে। পটলের সান্নিধ্যে এসে। ছেলেটা নাম করেছে, বড় হয়েছে তবু তাকে ভোলে নি। বাসস্তবাবু শোনায়। —আমারই এক ছাত্রের গাড়ি । তুমিও জানো-দীঘির পাড়ের মিত্তিরদের পটল, এখন মস্ত লোক। হঠাৎ দেখা হয়ে গেল ওর সঙ্গে, টেনে নিয়ে গেল। ওরই গাড়িতে পৌঁছে দিয়ে গেল । লতিকাও বের হয়েছিল। নিতাই-এর মাও এসেছে। বসন্তবাবুদের বাডি ঢুকতে দেখে ওরা যেন খুব খুশী হয় নি। লতিকা চুপ করে ভেতরে আসছিল। নিতাই-এর মা বলে। --বুঝলে লতিকা, পরের গাড়ির গরমে এমন মেজাজ কিসের বাছা ? মহীম তো পেরায়ই ট্যাক্সিতে চড়ে । সাবিত্রীও বাড়ি ফিরছিল, গাড়িটা দেখেছে সেও। বাবাকে নামতে দেখেছে সাবিত্রী। স্কুলের কাজ সেরে সাবিত্র ফিরছে। ক্রমশঃ সাবিত্রী তার নিজের পথ যেন খুঁজে \ჟ რ 2