পাতা:আমেরিকার নিগ্রো - রামনাথ বিশ্বাস.pdf/১০৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১০০ আমেরিকার নিগ্রো পারলে না। ঝরঝর করে তার চোখ হতে জল পড়তে থাকল। রুমাল দিয়ে চোখ মুছে একটা ট্যাসিতে বসল। ট্যাকুসি হু হু করে সেনট্রাল পার্কের দিকে চলল। উইলী মেয়েদের মত গলা খুলে রােদন করে কিছুটা আরাম পেল। উইলী আত্মসম্বরণ করে জুফ্রের জন্য অপেক্ষা করতেছিল। সপ্তা খানেক পর একদিন জুফ্রে আটলান্টাতে পৌছল। জুফ্রে আটলান্টাতে এসেই নিজের নামে একখান। সাপ্তাহিক পত্রিকার লাইসেন্স নিল। অন্যের প্রেসে কাজ করাই ঠিক হয়েছিল। সাপ্তাহিকের নাম দেওয়া হল “নিগ্রো,” সম্পাদক মসিয়ে জুফ্রে, প্রকাশক মসিয়ে জুফ্রে, ম্যানেজার মসিয়ে জুফ্রে। প্রথম সংখ্যাতেই নিগ্রো জাতের দোষের কথা বলা হয়েছিল। এর পরের সংখ্যায় বলা হয়েছিল কেন নিগ্রোরা দোষ করে ? দ্বিতীয় সংখ্যা প্রকাশিত হওয়া মাত্র ম্যাকের মা আটলান্টাতে চলে এলেন। তিনি দরজায় দরজায় যেয়ে “নিগ্রো” পৌছে দিতে থাকলেন। প্রথম সপ্তাহেই ম্যাকের মা কমিশন বাবদ উনত্রিশ ডলার পেলেন। তিনি এত ডলার এক সংগে কখনও দেখেন নি। আটলান্টা সহরে আসার পর তিনি ছিলেন একটি হােটেলে, দৈনিক দশ সেন্ট করে রুম ভাড়া দিতেন। মামুলি ধরণের একটা বিছানাও ছিল। এতগুলি ডলার পাবার পরই তিনি বার ডলার মাসিকে একখানা রুম ভাড়া করলেন। কি সুন্দর তার বিছানা। প্রিংএর খাট তার ওপর গদি এবং তার উপর তােষক। ধবধবে চাদর ও ফেদারের বালিশ অতীব আরাম দায়ক। স্নানের টাব তার সঙ্গে গরম ও ঠাণ্ডা জলের পাইপ। নূতন রুমে এসে গরম জলে ভাল করে স্নান করার পর তার শরীরের অর্ধেক রােগ উপশম হয়েছিল। রুমের মধ্যেই, গ্যাসের উনুন ছিল। রান্না করার বাসনও পেয়েছিলেন।