পাতা:আমেরিকার নিগ্রো - রামনাথ বিশ্বাস.pdf/২১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মও লাভ দেয়। কর্মশক্তি বাড়িয়ে দেয়। তারপর যখন ঘরে ফিরে আসতাম তখন উঠতে ইচ্ছা হত না, এমন কি তামাকের রসে ভিজা দুর্গন্ধ হাত দুটোও ধুতে ইচ্ছা হত না। এই সেই মদ। | এন্তনীয় বড় বােনটা এক বােতল মদ খেয়েই বেহুস হয়েছিল। তার দিকে কেউ তাকাচ্ছিল না। তাকে দেখলে মরার মতই দেখায়। শুধু বুকটা নড়ছিলাে এবং নাক দিয়ে খাস বইছিল বলেই জীবিত বলা চলে। এত মদ খাওয়া অন্তত যুবতীর পক্ষে খুবই খারাপ। শরীর ভেঙ্গে যায়, কর্ম ক্ষমতা লােপ পায়, চোখের জ্যোতি কমে। খিটখিটে হয়, তারপর ধরে ডিসপেপসিয়ায়। তখন এসব যুবতীর দিকে কেউ তাকায় না। পূর্ব পরিচিত মনিবের দল নিগ্রানী বলে তাড়িয়ে দেয়। অনেকে ক্ষয় রােগে আক্রান্ত হয়, হসপিটালে যায় এবং তাড়াতাড়ি মরে। এন্তনীর ছােট বােনের নাম পামেলা। সেও যে ঢক ঢক করে নিজের মুখে মদ ঢেলে দিচ্ছে। দিক ঢেলে। অনেকে শান্তি পাবে। পিশাচের দলে চলে যাবে। পামেলার, রং কাচা সােনার মত, মুখ গােল। ঠোটু পাতলা। ভুক বেশ মােটা। চুল যদিও উলী তবুও লম্বা। বেণী পিঠের উপর পড়ছিল যেন একটা কালাে সাপ লাল ফিতার ভেতর দিকে এগিয়ে যাচ্ছিল। সাপ, তাড়াতাড়ি পামেলাকে দংশন করুক, পামেলা মরুক। মরলে শাস্তি পাবে। | বােতলটা শেষ করে পামেলা একটা যুবকের মুখে চুমু দিল। যুবক মুখ ফিরিয়ে নিজের মুখটা রুমাল দিয়ে মুছে ফেলল। পামেলা যুবককে জড়িয়ে ধরল। যুবক তার দুখানা হাত সরিয়ে দিয়ে মাটিতে শুইয়ে দিল। পামেলা ধীরে ধীরে জ্ঞান হারাল। যুবকের দল আর কাকে নিয়ে আনন্দ করবে? মরা মানুষের সঙ্গে আনন্দ হয় না। মরা মানুষ করে নিক্ষেপ