পাতা:আরোগ্য - মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/১৪৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


করল না, আমি গিয়ে বুঝিয়ে বললেই চলে আসবে ? আপনি বরং এক কাজ করুন। একখানা চিঠিতে স্পষ্ট লিখে দিন যে এবার থেকে আপনি আর দিনরাত বৌদিকে চোখে চোখে চোখে রাখবেন না, স্বাধীনভাবে চলাফেরা করতে দেবেন, সিনেমায় ঢুকতে চাইলেও কোন আপত্তি করবেন না । ভুবন বিরস মুখে চেয়ে থাকে। কেশব বলে, এ ছাড়া আমি তো করার কিছু ভেবে পাচ্ছি না। এভাবে যখন বৌদি গেছে, মনটাকে শক্ত করেই গেছে। সিনেমায় বৌদি ঢুকবেই, আপনি ঠেকাতে পারবেন না। তার চেয়ে আপনি যাদ উদার ভাবে জানিয়ে দেন যে আপনি বাধা দেবেন না, বৌদি স্বাধীন ভাবে যা খুলী করতে পারবে তাহলে হয় তো ফিরে আসতে পারেন। যা খুন্সী করতে পারবেন মানে অবশ্য সিনেমায় গিয়ে হোক, অন্য রকম ভদ্র ভাবে হোক বৌদি পয়সা রোজগার করতে পারবে। মেয়েদের পয়সা রোজগার করার অধিকারটা আপনি উড়িয়ে দেবেন না। ওই নিয়ে ঝগড়া করবেন না। পরিষ্কার করে এসব লিখে দিন, বৌদি নিজেই হয়তো ফিরে আসবে।

হয় তো !
বৌদির মনের কথা আমি কি করে বলব বলুন ?

অনেকক্ষণ গুম খেয়ে বসে থেকে ভুবন উঠে দাড়ায়। বলে, দেখি ভেবে । বেরোবার কথা ভুলে গিয়ে কেশব ডাকে, মিনু, এক ছি লম তামাক দে । কল্কিতে ফু দিতে দিতে মিনু এসে বলে, দাদা, তামাক । S88