পাতা:আরোগ্য - মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/৫০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কেশব শোনে কি কথার জের টেনে ললনা বলছে, দশজন সুস্থ মানুষের সঙ্গে না মিশলে আমার দম আটকে আসে । ঃঃ আমি কি অসুস্থ মানুষ ? আমার সঙ্গে একটু বেড়ালে দোষ কি ?

এই তো বেড়াচ্ছি। আপনাকে বাড়ীতে নামিয়ে দিয়ে আমি

বাড়ী যাব । বন্ধুর বাড়ী উৎসব চলছে, বাড়ীতে জরুরী কাজ না থাকলে চলে আসি ? ঃ কি কাজ ? ঃ আছে একটা ঘরোয়া ব্যাপার । কেশব টের পায়, নরেশ আহত হয়ে চুপ করে গেল। লালন বলে আপনি তো খুব বড় কেমিষ্ট। বাতাসে অক্সিজেনের পাসেণ্টেজ আরও বেশী হল না কেন বলতে পারেন ? অক্সিজেন আমাদের এত দরকারী ! চট করে আড় চোখে কেশব নরেশের মুখ দেখে নেয় । একটু বিষঃ হাসি ফুটেছে নরেশের মুখে । S DBSDD BOB BDB LBLBDB DD DBDDYS DDBD BB DBBD অন্ততঃ ছেলে-ভুলানোর চেষ্টাও কর । কিন্তু সত্যই কি ছেলে-ভুলানো প্রশ্ন করছিল৷ ললনা ? পরদিন আপিস কলেজ যাবার বেলায় নিমাই এসে জানায়, ললনা কলেজ যাবে না । ডাক্তারকে ফোন করা হয়েছে।

ইস। কিরকম যে করছে শ্বাস টানার জন্য। দেখলে এমন কষ্ট হয়। কেশব বলে, রাতে ডাক্তার এসেছিল শুনলাম ।

ঃ সে তো পেট ব্যথার জন্য। এখন আবার হঁপানি উঠেছে ৷ প্ৰতিমাসে ললনা খুব ব্যথা ভোগ করে এটাই জানা ছিল কেশবের । এসময় তার যে আবার ছাপানিও হয় আজ সেটা প্ৰথম জানতে পারে। 8V