প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:আর্য্যদর্শন - দ্বিতীয় খণ্ড.pdf/১৮৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আলেকজাণ্ডারের সমসাময়িক ও র্তাহার | | তাহা দ্বারা বৌদ্ধ, জৈন, কি অন্য কোন | দেখিতে পাওয়া যায় না । | গ্ৰীসদেশীয় পণ্ডিতেরা যে ব্রাহ্মণভিন্ন ======eیبیسیس >° や আর্য্যদর্শন । শ্রাবণ ১২৮২ ৷ গুপ্তেব সভায় দূতস্বরূপে উপস্থিত হইয়া | ছিলেন, তাহার পুৰ্ব্বেও জৈনধৰ্ম্মের প্রথম সমুদ্ভৱ হইয়াছিল, কারণ আলেক্‌ জাণ্ডার ও তাঁহার অব্যবহিত অধস্তন, পুরুষদিগের সমসাময়িক ইতিহাস-রচয়িতৃগণ নিজ নিজ গ্রন্থে জৈনধর্মের উল্লেখ করিয়া গিয়াছেন। কিন্তু সূক্ষ্মাহুহুঙ্ক গবেষণা করিলে অবশ্যই প্রতীতি হইবে,যে তদানীন্তন কালের গ্রন্থকর্তার ব্রাহ্মণ ব্যতীত আর একপ্রকার সম্প্রদায়েব উল্লেখ করিয়া cछ्नं दै, किरु ¢कझई टेक्कन दलिश একটা স্বতন্ত্র উপাসকসম্পদায়ের উল্লেখ করেন নাই। র্তাহার। ব্রাহ্মণব্যতীত অপর যে সম্প্রদায়ের উল্লেখ করিয়াছেন, প্রকার সম্প দায় অভিপ্রেত, ইহা নির্ণয় করিবার উপযুক্ত কিছুমাত্র বিনিগমন তদানীন্তন অপর এক প্রকার ধৰ্ম্মাবলম্বীর উল্লেখ করিয়াছেন, বিশেষ অনুসন্ধান করিলে অবুশ্যই প্রতিপন্ন হইবে, যে সেট তাছাদের ভ্রান্তিবিলসিত মাত্র। র্তাহারা ব্রাহ্মণদিগের বেদবিহিত আচারাদির বিষয় কিছুমাত্র অবগত ছিলেন না। বেদের শাসন অনুসারে ব্রাহ্মণদিগকে ব্রহ্মচৰ্য্য, গার্হস্থ্য, বানপ্রস্থ, ও ভিক্ষণ, যথাক্রমে এই চারি প্রকার আশ্রমে প্রবেশপূৰ্ব্বক জীবনকাল অতিৰাহিত করিতে হয় । अदTबश्ऊि अथर्डन পূৰ্বপুরুষের এই বিষয়ট অবগত ছিলেন না, সুতরাং র্তাহারা বনবাসী অথবা সংসারবিরাগী ভিক্ষু ব্রাহ্মণদিগকে অবলোকন করিয়া স্বতন্ত্র ধৰ্ম্মাবলম্বী বলিয়া সিদ্ধান্ত করিয়াছিলেন, ইহাই যুক্তিসিদ্ধ বলিয়া প্রতীয়মান হয়। অতএব তাছাদের উল্লিখিত ব্রাহ্মণ ব্যতীত সম্পূ দায় বলিতে প্রকৃতপ্রস্তাবে একটা স্বতন্ত্র সম্প্রদায় বলিয়া সিদ্ধান্ত করা কোনক্রমেই শ্রেয়ঃকল্প হইতে পারে না। আর যদিই বা ব্রাহ্মণ বাতীত কোন স্বতন্ত্র সম্প্রদায় তৎকালে বিদ্যমান ছিল ইহাই যথার্থ হয়, তাহা হইলেও সেই স্বতন্ত্র সম্প্রদায়ের উপাসকদিগকে বৌদ্ধ বা জৈন বলিয়া সিদ্ধান্ত করিতে পারা যায় না। কারণ তৎকালে শ্রমণ নামে যে একপ্রকার সম্প্রদায় বিদ্যমান ছিল, সেই সম্প্রদায়ের উপা সকেরা যে জৈনভিন্ন আর কোন প্রকার ধৰ্ম্মের উপাসক ছিল না ইহা কিছুতেই সিদ্ধান্ত করিতে পারা যায় না। ফলতঃ সংস্কৃতভাষায় শ্রমণ শব্দের যেরূপ অর্থ, তাহার প্রতি মনোনিবেশ করিলে অবশ্যই প্রতীতি হইবে যে, শ্রমণ শব্দে বৌদ্ধ, জৈন, বা ব্রাহ্মণ কোন প্রকার বিশেষ স. ম্প্রদায়ের উপাসকদিগকে বুঝাইতে পারে না, ফলতঃ কতিপয় বিশেষ লক্ষণাক্রান্তু বনবাসী বা ভিক্ষুকমাত্রকেই প্রমণশৰো নির্দেশ করিতে পারা যায় । জাবার কোম | কোন পণ্ডিতদিগের মতে শ্রমণশঙ্কের অর্থে শূদ্ৰজাতীয় সন্ন্যাসীদিগকে বুঝায়। অতএব যে কোন পক্ষ অবলম্বন কয় যা |