প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:আর্য্যদর্শন - দ্বিতীয় খণ্ড.pdf/২৭২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আশ্বিন ১২৮২। । H = -- H | . - জৈনধৰ্ম্ম। : -

| প্রতি ভুক্তিও শ্রদ্ধা করিবার কিছুমাত্র | অবশ্যকতা নাই। উল্লিখিত নানাবিধ | সম্প্রদায়ব্যতীত | অপর দুষ্টট সম্প্রদায়ে বিভক্ত। এক দল উদাসীন ও যোগী, আর এক দল সংসারী। প্রথম সম্প্রদায়ের লোকের জীবিকানিৰ্ব্বাহোপযোগী কোন প্রকার ব্যবসায় অবলম্বন করেন, কেবল ভিক্ষাব্যবসায়ের উপর নির্ভর করিয়া কালাতিপাত করিয়া থাকে। ইহার স্ত্রীলোকদিগকে ঘৃণা করে, এবং লোকালয়ের বহির্ভাগে মঠ নিৰ্ম্মাণ পূৰ্ব্বক তথায় বাস কয়িয়া থাকে। ইহা দের অন্তরে ভক্তি যতদূর থাকুক আর নাই थाकूक, दांश अफ़्छड़ डाउाख् । खैौदः হিংসার ভয়ে আপনাদিগকে অনুক্ষণ ব্যতিব্যস্ত দেখায়। এমন কি উপবেশনস্থান হইতে প্রথমে সংমার্জনীদ্বারা অদৃশ্য জীবজন্তু অপসারিত করিয়া তবে উপবেশন করিয়া থাকে। কিন্তু ইহাদের মধ্যে অনুসন্ধান করিলে অনেক প্রতারক চোঁর প্রভৃতি দেখিতে পাওয়া যায়। ইহার কখনই মন্দিরের পৌরোহিত্য স্বীকার | করেন, পৌরোহিত্য কার্য প্রায়ই ব্রাহ্মণ | দিগের দ্বারা সম্পাদিত হয়। সংসারীরা |শ্ৰাবক নামেও প্রসিদ্ধ। শ্রাবকের আচার ব্যবহারাদি অনেক বিষয়ে হিন্দু| দিগের অবিকল অমুকরণ করিয়া থাকে। | কিন্তু ইহারা সাধারণ্যে প্রায় কোন প্রকার |হিন্দু দেবদেবীর আরাধনা করেন। ૭8 . জৈনেরা সাধারণ্যে ইহান্নতি অর্থাৎ সালী . জৈনদিগকে - গুলির গঠনপ্রণালীভূতি অনেক অংশে সৰ্ব্বদাই ভিক্ষাদান করিয়া থাকে, এবং | পাশ্বনাথ ও মহাবীর এই দুই জন তীর্থ । স্করের সবিশেষ অচ্চনা করিয়া থাকে। বাঙ্গালা ও বিহারের নানাস্থানে বহুসংখ্যক জৈন মন্দির দেখিতে পাওয়া যায়। হিন্দুদিগের মন্দির অপেক্ষ ইহাদিগের মন্দির উৎকৃষ্ট। বিহার প্রদেশে পার্শ্বনাথের পাদুকা । আছে। নানাদিগৃদেশ হইতে অসংখ্য যাত্রী প্রতিরৎসর পাশ্বনাথের মন্দির দর্শনার্থ উপস্থিত হয়। বারাণসী পাশ্ব, নাথের জন্মস্থাম বলিয়া খ্যাত। এই মহানগরীতে অনেক গুলি মন্দির ও মঠ প্রতিষ্ঠিত আছে। বাঙ্গালাদেশেও মুর্শিদাবাদ প্রভৃতি স্থানে বহুসংখ্যক জৈনের বাস। মুর্শিদাবাদের সুবিখ্যাত শ্ৰেষ্ঠীর জৈনধৰ্ম্মালম্বী, এই জন্য মুর্শিদাবাদেও কতিপয় জুৈনমন্দির দেখা যায়। কিন্তু জয়পুর ও মারওয়ার প্রভৃতি প্রদেশে যত মন্দির আছে, অন্য কুত্রাপি তত নাই। মারওয়ারের প্রায় সমুদয় অধিবাসীই জৈনধৰ্ম্মাবলম্বী। দাক্ষিণাতের অন্তর্গত অনেক স্থানে জৈনদিগের বাস আছে। ইহারা জাতিভেদ স্বীকার করিয়া থাকে। ফলতঃ এক্ষণে বাণিজ্যাদি নানাস্থত্রে ভারতবর্ষের প্রায় : সৰ্ব্বত্রই জৈনদিগের বসতি হইয়া পড়িয়াছে। জৈনদিগের পুরাবৃত্তাদি বিষয়ে অধুনাতন গবেষণাম্বারা যতদূর জানা গিয়াছে, তাহা পিবদ্ধ হইল। অতঃপর ইহুদিগের বন্ধঃৰাষ্ট্রর মূলছত্র সকল অর্থাৎ জৈন |