প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:আর্য্যদর্শন - দ্বিতীয় খণ্ড.pdf/২৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


| বৈশাখ ১২৮২ | ভারতের একতা । ミ> রম্ভ হইলে, তাহার স্থায়িতা ও উৎকর্ষ | সাধনার্থ, সরকার বাহাদুর যথোচিত আমুকুল্য করিতে কৃপণতা বেন না । এখন আমাদের কৰ্ত্তব্য কি হইতেছে ? আমাদের উচিত কাল বিলম্ব না করিয়া সেই “প্রাচী সভার" দৃষ্টাস্তে একটি মহৎ সভার স্থাপন করা। সেই সভার স্থান ভারত জুড়ে ; তাহার সভ্য সকল সম্প্রদায়ের ; তাহার উদ্যোগ সমাজের উন্নতি পক্ষে। তাহার অধিবেশন কাৰ্য্য বৎসর একবার করিয়া, কখন কলিকাতায়, কখন বা এলাহাবাদে, লাহোরে, বোম্বায়ে, মাদ্রাজে, লক্ষ্মেীনগরে সমাহিত হইবেক । সমাজের ধুরন্ধরগণ সভার সভ্য হইয়৷ সাধারণের, সম্প্রদায় বিশেষের ও বিভাগ বিশেষের হিতার্থ নানা বিষয়ের আন্দোলন ও মীমাংসা করিবেন ; সময়ে করি সময়ে গবৰ্ণমেণ্টের নিকট আবেদন করি বেন এবং হিতপথ্য উপদেশ দিবেন। এইরূপ সভাস্থাপনের কীৰ্দশ শুভ ফল বঙ্গবামার ধৰ্ম্ম নৈতিক অবস্থা। -290ళE= (পূর্ব প্রকাশিতের পর ) আমরা ভাণ করিয়া থাকি, আমাদিগের | করা উচিত, তাহার ধৰ্ম্মনৈতিক অবস্থা | রমণীগণ সতীত্ব ধৰ্ম্মে শ্রেষ্ঠতম। বঙ্গ | কি, এবং আমাদিগের সতীত্ব কামিনীকে সতী বলিবার পূৰ্ব্বে বিবেচনা | কি প্রকার ? : - হইবেক, তাহার বিশেষ বিবরণ করিবার আবশ্যকতা নাই। তাহা হইলে অনেকে আমাদিগকে দুরাশার দাস বলিয়। অশ্রদ্ধা করিতে পারেন। কিন্তু আমরা একটি । কথা না বলিয়া থাকিতে পারিলাম না। { ঈদৃশ সভা দ্বারা ভারতের যে একটি মহৎ অভাবের পরিহার হইবেক, তাহাতে | মতদ্বৈধ হইতে পারে না। ভারতহিতৈষী | মাত্রেই আক্ষেপ করিয়া থাকেন যে, এদেশে প্রকৃত প্রস্তাবে সাধারণ মত অদ্যাপি প্রবর্তিত হয় নাই। কিন্তু আপত্তির ভয় না করিয়া বলা যাইতে পারে যে, পূৰ্ব্বোক্ত সভার যাহা অভিমত, তাহাকে সাধারণ মত বলিয়া স্বীকার করিতে ইংরাজ গবর্ণমেণ্ট ও ইংরাজজাতি সাধারণ্যে প্রস্তুত হইবেন। তাহা হইলে এমন প্রত্যাশা করা অসঙ্গত নহে ! যে ভারতবর্ষের শাসন সম্পর্কে ব্রিটনের সাধারণ মত ও মহারাণী ভিক্টোরিয়ার অঙ্গীকার পত্র, সম্পূর্ণ ভাবে না হউক, অনেকাংশে কার্য্যে পরিণত হইবেক । ধৰ্ম্মের ভাব