প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:আর্য্যদর্শন - দ্বিতীয় খণ্ড.pdf/৩৯৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


NOb- o চণ্ড স্বয়ং অস্তুর সঙ্গে রণে মাতিয়াছেন। তাহারা পুষ্পকেতুকে বলিল “রাজকুমার ! ক্ষান্ত হোনু, সতীর গাত্রে হাত দিবেন না, যে অর্থ দিয়েছিলেন তার চার গুণ নিয়ে যান, • * আমরা মহারাজের বন্ধন খুলে দিই।” এই বলিয়া তাহারা পৃথুর বন্ধন মোচন করিয়া দিল । পুষ্পকেতু এই সকল দেখিয়া ভয়ে বেগে পলায়ন করিল। পৃথুও দস্থাদিগের প্রতি পরম সন্তুষ্ট হইয় “কানাকুজ ও হস্তিনার কিয়দংশ তোমাদিগকে জায়গীর স্বরূপ প্রদান করব" তাহাদিগের নিকট এইরূপ প্রতিশ্রত হইয়া নববিবাহিত ভাৰ্য সমভিব্যাহরে হস্তিনায় গমন করিলেন । পৃথু হস্তিনার প্রত্যাগত হইয়া আর অধিক দিন সুখ ভোগ করিতে পারেন নাই। তিনি হস্তিনীয় উপনীত হওয়ার অব্যবহিত পরেই, মহম্মদ ঘোরী হস্তিনা অবরোধ করিল। এদিকে পুষ্পকেতুও মহম্মদ ঘোরীর গুপ্তচর হইয়া ছদ্মবেশে পৃথু সৈন্যের অন্তনিবেশিত হইল। একদিন রজনীযোগে যখন নগরদ্বাররক্ষক পৃথুর সেনানীগণ মধু পানে মত্ত হয়ে পতিত ছিল, তখন ছদ্মবেশী পুষ্পকেতু যবনদিগের সম্মুখে নগরের দ্বার | উদঘাটন করিয়া দিল। যবনসেন অনিবার্য বেগে নগর মধ্যে প্রবিষ্ট হইল। চতুর্দিকে রুধিরস্রোত প্রবাহিত হইল। মামুদ ঘোরীর খড়গাঘাতে চিতোরোধিপতি বীরবর সোমরাজ “হ ভারতভূমি !" এই বলিয়া পতিত ও মৃত হইলেন " পৃষ্ণু রাজ সখা সোমরাজের মৃত দেহ দেখিয়া আৰ্যদর্শন। যেমন পতিত ও মূচ্ছিত হইলেন, অমনি تجسد অগ্রস্থায়ণ ১২৮২ । । কুতব ও মামুদ দুইজন সৈনিক সমভি বাহারে পৃষ্ণুকে শৃঙ্খলবদ্ধ করিয়া লইয় গেল । ছদ্মবেশী পুষ্পকেতু ও সোমরাজের মৃত্যু ও পৃথুর-কীরাবরোধ বৃত্তান্ত হস্তিনার অন্তঃপুর মধ্যে প্রচার করিল। এই হৃদয়বিদারক সংবাদে অন্তঃপুরের যে কি অবস্থা ঘটিল—তাহা বলা বাহুল্যমাত্র। পুষ্পকেতুর সঙ্কেতে কয়েকজন যবন অন্তঃপুর মধ্যে | প্রবিষ্ট হইয়া অনঙ্গমঞ্জরীকে গ্রহণপুৰ্ব্বক প্রস্থান করিল। যে গৃহে পৃথুরাজ শৃঙ্খলবদ্ধ অবস্থায় দুই জন যবন কর্তৃক রক্ষিত হইয়াছিলেন, তাহারই পাশ্বস্থ বহিৰ্ব্বদ্বার গৃহে মূচ্ছিত৷ অনঙ্গমঞ্জরী শায়িত হইলেন । কিয়ৎক্ষণ পরে মহম্মদ ঘোরী পৃথুরাজের সম্মুখে উপস্থিত হইয় তাহাকে অনেক মৰ্ম্মদেভী প্রশ্নে উৎপীড়িত করিতে লাগিল। কিন্তু ইহাতেও পৃথুরাজের অন্ত:করণ মবিকৃত, স্বাধীন ও নির্ভীক রহিল। যবনরাজ র্তাহার প্রার্থনা গ্রাহ্য করিতে স্বীকৃত হইলেন ; কিন্তু পৃথু এই বলিয়া তাহাতে উপহাস করিলেন যে কি আশ্চৰ্য্য “মরুনিবাসী চীরধারী যবন আজি ভারত সম্রাটের প্রার্থনা গ্রাহ্য করিবেন!” - অনেক বাকবিতণ্ডার পর যবনরাজ বলিলেন যে “পৃথুরাজ ! তোমার যে, কি হইবে, আমারও সে বিষয় জানতে কৌতুহল জন্মেছে। পুষ্পকেতুর কৌশলেই এ রাজ্য আমার হস্তগত হইয়াছে এবং E l