প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:আর্য্যদর্শন - দ্বিতীয় খণ্ড.pdf/৪৫২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


* |T. = + ਬਿ। রসায়ন-বিজ্ঞান প্রভাবে শ্রম-শিল্পের উন্নতি । ৪৩৫ 胃 --- যে সকল কিরণ বিকীরণ করে, ঐ সকল কিরণের গমনে উক্ত বাষ্প বাধা প্রদান করে। সোডিয়া, আলোকে, যে স্থলে উজল পীত বর্ণ রেখা দেখা যায়, ঠিক সেই স্থলে স্বৰ্য্যকিরণে কাল রেখা দেখিতে পাওয়া যায়। এই জন্য | এই অনুমান হয় স্থৰ্য্য সোডিয়ম-বাম্পে বেষ্টত। এইরূপে স্বর্য্য, নক্ষত্র প্রভৃতিতে আমাদের পৃথিবীস্থ প্রায় সকল রাসায়নিক বস্তুরই সত্ত্ব আবিষ্কৃত হইয়াছে। ফলতঃ এই যন্ত্র আবিষ্কারের পূৰ্ব্বে কে ভাবিয়াছিল যে কালে ক্ষুদ্র মনুষ্য এই পৃথিবীতে থাকিয়া লক্ষ লক্ষ যোজন দূরবর্তী নক্ষত্র গণের রাসায়নিক উপকরণ সকল নির্ণয় করিতে সমর্থ হইবে। স্বৰ্য্য গ্রহণেব সময় চন্দ্রের চতুঃপাশ্বের্ণ আলোকময় পৰ্ব্বতের ন্যায় দৃশ্য দেখা যায় এই ঘন্ত্র দ্বারা তাঙ্গার প্রকৃতি নির্ণীত হইয়াছে। লক্ইয়ারের পরীক্ষায় উহা প্রজলিত বাপ-গু,প ভিন্ন আর কিছুই নয়। স্বৰ্য্য এই বাশ- প দ্বারা বেষ্টিত। ইহার অধিকাংশই উদজান এবং ইহার গভী ब्रड बनून १००० माईज ।। ७उख्नि চিকিৎসা-শাস্ত্রেও এই যন্থের বিশেষ উপযোগিতা দৃষ্ট হয়। যথা প্রকৃত এবং বিকৃত রক্তের পরীক্ষা, মৃত্রে আলবুমেনের সত্ত্বা নির্ণয় করণ ইত্যাদি । ফলতঃ এত বহুফল—গ্রন্থ যন্ত্র যে ব্যক্তি দ্বয়ে (বুনসেন ও কার কফ ) শ্রমের ফল তাছারা সকলেরই ধন্যবাদের পাত্ত তাহাতে আর সন্দেহ নাই। * অনশ্বরত্ব । বিজ্ঞান ও শিল্প সম্বন্ধীয় এই সকল উন্নতির বিষয় বলিয়া পরিশেষে বর্তমান সময়ের আবিষ্কৃত একটা মহৎ তত্ত্বের সংক্ষেপে উল্লেখ করা বোধ হয নিতান্ত অপ্রাযঙ্গিক কষ্টবেন। এই মহৎ তত্ত্ব-অনশ্বরত্ব। জগতে কিছুরই বিনাশ নাই। একটা বস্ত দগ্ধ হইয়া ভস্মাবশেষ হইল ! অপর একটী বস্তু উত্তাপে বাষ্পীভূত হইল। বোধ হইল যেন তাহদের আর কিছুই থাকিলন। কিন্তু তাহার ইন্দ্ৰিয়াতীত স্বক্ষতম একট পরমা ও নষ্ট হইল না। কেবল রূপান্ত রিত হইয়া অবস্থিত রছিল। এইরূপে দেখা যায় যে পদার্থের বিনাশ নাই। শুদ্ধ পদার্থ কেন বলের ও বিনাশ নাই। কামান হইতে একটী গোলা বেগে গিয়া পৰ্ব্বতে নিহিত হইল বোধ হইল যেন তৎক্ষণাৎ তাহার সমস্ত বেগ উপশমিত হইল কিন্তু বাস্তবিক সে বেগ কেবল রূপান্তরিত হইল, রূপান্তরিত হষ্টয়া পতন স্থানের সমস্ত অণুকে দ্রুতবেগে কম্পিত করিতে লাগিল এবং তাহার ফল স্বরূপ সেই স্থান উত্তপ্ত হইল। তড়িত, স্মায়ব, রাসায়নিক প্রভৃতি বল ও এইরূপ । মানব । ইহাদের স্বজনেও যেরূপ অক্ষম,বিনাশেও }ড়প। এই সকল বল বিশেষ শি অবস্থিায় পরম্পর পরস্পরের প্রকৃতি ধারণ | করে) অর্থাৎ কখন স্নায়ব বল তাড়িত, কথন বা ভৌতিক বল রাসায়নিক বলে পরিবর্তিত হয়। পরিশিষ্ট । আমরা এতক্ষণ কেবল শিল্প ও