প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:আর্য্যদর্শন - দ্বিতীয় খণ্ড.pdf/৬৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


HHMSMSASAASAAAS (? 8 ভাৰ্য্যদর্শন। بیبیسیستیسی ६ञार्छ २२४२ ।। গ্রহণীয় নহে। অপর পুরুষের সহিত প্রণয় গত নহে । যাহা ধৰ্ম্ম তাহার বিপরীত । করা সামাজিক নিয়মবিরুদ্ধ। এই প্রকার | সতীত্বধৰ্ম্ম কতদূর মানবপুরুতিকুসঙ্গত । তাহ অনায়াসেই অনুমিত হইতে পারে । এবঞ্জকার ধৰ্ম্ম সাধন করিতে হইলে যে প্রাকৃতিক নিয়ম লঙ্ঘন করিতে হয় তাহ { অনায়াসেই পদৰ্শন করা যাইতে পারে। { আমাদিগের সহযোগী, “বিবাহ ও পুত্রত্ব | বিষয়ে মনুর মত ’ নামক গ্রন্থের মুবিজ্ঞ সমালোচক, উক্ত সতীত্বধৰ্ম্মের পাপময় | ফলাফল প্রদর্শন করিয়া প্রতিপন্ন করিয়াছেন যে, তাহ বাস্তবিক ধৰ্ম্ম নহে, তাহাকে অবশ্য অধৰ্ম্ম বলিয়া অভিহিত করিতে হইবে। তথাপি বঙ্গবামাকে এই | ধৰ্ম্মের বশবৰ্ত্তিনী থাকিতে হইবে। এবং বাস্তবিক যাহা অধৰ্ম্ম তাহাকে তাহা ধৰ্ম্ম| সৃরূপ জ্ঞান করিয়া তদন্ত্রবর্তনে ধৰ্ম্মশীলা বলিয়া খ্যাতিলাভ করিতে হইবে । নহিলে জন-সমাজ তাহাকে গ্রহণ করিবে না । আহা! বঙ্গবামার ধৰ্ম্ম নৈতিক অবস্থা কি ভয়ঙ্কর, কি শোচনীয় ! কত দিনে তিনি এই অবস্থা হইতে মুক্ত হইবেন কে বলিতে পারে ? - বামীগণের পক্ষে সতীত্বধৰ্ম্মের নিয়ম এত কঠিন বটে, কিন্তু আশ্চর্ষ্যের বিষয় এই যে, বঙ্গীয় সমাজে পুরুষজাতির পক্ষে । সেই একই নিয়ম কেমন শিথিল । এক ধৰ্ম্ম বিভিন্ন জাতির প্রতি প্রযুক্ত হইলে তাহার যে এত বৈপরীত্য ঘটে, এ বড় বিচিত্র কথা। জাতিবিশেষে একই ধর্মের নিয়ম ষে বহুবিধ হইবে ইহা ধৰ্ম্মের ੋ অবশ্য অধৰ্ম্ম। শ্বেত কখন কৃষ্ণ হইতে পারে না, কৃষ্ণ কথন শ্বেত হইতে পারে না। কিন্তু অামাদিগের বঙ্গীয় সমাজে তাহ সঙ্গত। পুরুষের পক্ষে যাহন্যায্য ও ধৰ্ম্মা श्मष्ठं স্ত্রীর পক্ষে তাহ बिांधं शैीशः তির মধ্যে একাধিক বিবাহ অসিদ্ধ অথচ পুরুষের মধ্যে তাছা বিলক্ষণ প্রচলিত আছে। বহুবিবাহ যদি পুরুষের পক্ষে ধৰ্ম্মবৈধ হয়, স্ত্রীজাতির পক্ষে তাহার বিপরীত হইবে কেন, আমরা স্থূলবুদ্ধিতে বুঝিতে পারি না। আবার আমাদিগের বিবাহসংস্কারের ধৰ্ম্মবন্ধন পর্য্যালোচনা করিলে অধিকতর আশ্চৰ্য্য হইতে হয়। এক বিবাহে বরকন্যা উভয়েই ধৰ্ম্ম% প্রতিজ্ঞায় আবদ্ধ হইলেন। স্ত্রীকে চিরজীবনের জন্য সেই প্রতিজ্ঞা পালন করিতে হইবে। স্ত্রী আর দ্বিতীয় পুরুষের পাণিগ্রহণে ধৰ্ম্মতঃ সমর্থী নহে। কিন্তু পুরুষজাতি আবার অন্য রমণীর পাণিপীড়নে ধৰ্ম্মতঃ সমর্থ। স্বামী, দ্বিতীয় অথবা তৃতীয়বার দীর পরিগ্রহ করিয়া অনায়াসে প্রথম পরিণয়ের সমুদায় প্রতিজ্ঞা ভঙ্গ করিতে সমর্থ হয়েন ; স্ত্রী কিন্তু সেরূপ হইতে পারেন না। স্বামী অনায়াসে সহধৰ্ম্মিণীকে পরিত্যাগ করিয়া অপর ভাৰ্য্যার সহিত প্রণয়স্থত্রে আবদ্ধ । হইলেন। স্বামী অনায়াসে প্রথম পরিণয়ের সমুদায় প্রতিজ্ঞা ভঙ্গ করিলেন, কিন্তু স্ত্রীর পক্ষে এ নিয়ম শাস্ত্রসঙ্গত নহে। স্ত্রীকে পরিণয়ের সমুদায় প্রতিজ্ঞ | |