পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (চতুর্থ বর্ষ).pdf/১০৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


દેવાઈ, ૭૨૦ | শিববাড়ীর বুদ্ধমূৰ্ত্তি । ৮৯ বুদ্ধমুক্তি দর্শন করিবার জন্য অনুরোধ করি। তদনুসারে তিনি উদ্যোগী হইয়া শিববাড়ী গিয়াছিলেন ; মুক্তি দেখিয়া মুগ্ধ হইয়াছিলেন এবং তাহার ফলস্বরূপ একটি বিবরণী লিখিয়া প্ৰকাশ করিতেছেন। যশোহর খুলনায় ঐতিহাসিক তথ্যসংগ্রহে ব্যস্ত থাকিয়া, কয়েক বৎসর পূর্বে জনৈক বন্ধুর মুখে শিববাড়ীর কথা শুনি । তখন তথাকার স্থাপিত মুক্তিটি শিবমূৰ্ত্তি कि न এ বিষয়ে দুই একজন একটু সন্দেহ করিতেন, কিন্তু সাধারণে উহা শিবমুক্তি বলিয়া মানিয়া লইয়া নিঃসন্দেহ ছিলেন । গত ১৯১১ খৃষ্টাব্দের ১৪ই মে তারিখে আমরা উক্ত মুক্তি প্ৰথম দৰ্শন করি। আমাদের সঙ্গে ক্যামেরা ছিল। কতকগুলি প্লেট খরচ করিয়া দেখিলাম, ফটো হয় নাই। কাল-পাথরের মুক্তি, তাহাতে বহুকালের তৈলাভিসিঞ্চন ও কালিমা সঞ্চয়, ঘরের মধ্যে মুক্তির উপর যথোপযুক্ত আলোকপাত হয় না ; এই সব কারণে আমাদের চেষ্টা ব্যৰ্থ হইল। শুধু আমাদের চেষ্টা যে ব্যর্থ হইয়াছিল, তাহা নহে ; খুলনার ম্যাজিষ্ট্রেট মিষ্টার ব্রাডলি-বার্ট মূৰ্ত্তিটি বাহিরে আনাইয়া যে ফটাে লইয়াছিলেন, তাহাতেও ছবি হইল না । আমরা পরের দ্বারা আর একবার চেষ্টা করিয়া পরাজিত হইলাম। অবশেষে গত পৌষ মাসে এক দিন সদলবলে যাইয়া ৮ জন বলীয়ান ব্ৰাহ্মণের দ্বারা প্ৰস্তরমূৰ্ত্তি বাহিরে আনিয়া ফটো লওয়া হইয়াছিল । আমার ছাত্ৰ শ্ৰীমান শরচ্চন্দ্ৰ মিত্র ক্যামেরা ও অন্যান্য সরঞ্জম লইয়া গিয়াছিলেন। ফটো লইয়া ঐ স্থানেই বসিয়া উহা !েevelop করিবার ব্যবস্থা করিয়া যখন দেখা গেল যে, ছবি হইয়াছে, তখন আমরা সানন্দে স্থান ত্যাগ করিলাম। ঐ ফটো হইতে যে ব্লক প্ৰস্তুত হইয়াছে, তাহা হইতেই আজ বুদ্ধমূৰ্ত্তির ছবি প্রকাশিত করিলাম।* শ্ৰীসতীশচন্দ্ৰ মিত্ৰ ।

  • চিত্রের ব্লক খানি লেখক মহাশয়ের যশোহরের ইতিহাসের জন্য প্রস্তুত করা হইয়াছে। গত পৌষ মাসের পল্লীচিত্রে’ যে ছবি প্রকাশিত হইয়াছে, তাহাও সতীশ বাবুর

ফটো হইতে প্ৰভাত । সম্পাদক । R