পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (চতুর্থ বর্ষ).pdf/৪১০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ভাত্র, ১৩ই • গিরীশচন্দ্ৰ ঘোষ। . . . . . . ৩৭৫ষ্ট্র গিরীশচন্দ্র ঘোষ । مسس سی-43 سے আজ কাল বাঙ্গালীর নিকট “হিন্দু পেটুয়ট’ ও ‘বেঙ্গলী' সংবাদপত্রদ্বয়ের । প্রতিষ্ঠাতা গিরীশচন্দ্র ঘোষের নাম সুপরিচিত না হইলেও অৰ্দ্ধশতাব্দী পূৰ্ব্বে । তাহার নাম সকল শিক্ষিত বাঙ্গালীর নিকট সুপরিচিত ছিল। কেবল সংবাদ-- পত্র-পরিচালনের নহে; পরন্তু তৎকালীন সকল সাধারণ অনুষ্ঠানের সঙ্গেই । গিরীশচন্দ্রের ঘনিষ্ঠ যোগ ছিল। সংপ্ৰতি তাহার পৌত্ৰ শ্ৰীযুক্ত মন্মথনাথ ঘোষসম্পাদিত গিরীশচন্দ্রের জীবনী বাঙ্গালীকে তাহার জীবনকথার সহিত পরিচিত । করিয়াছে। পুস্তকের অপ্রকাশিতনাম গ্ৰন্থকার গিরীশচন্দ্রের সহিত পরিচিত । ছিলেন এবং সমসাময়িক ঘটনাদির বিবরণ দিয়া গ্ৰন্থখানি সুখপাঠ্য করিয়াছেন। এই পুস্তকের জন্য বঙ্গবাসী সম্পাদক মহাশয়ের নিকট ঋণী—কারণ, এইরূপ । পুস্তকের সাহায্য ব্যতীত পরবর্তী কালে আমরা আধুনিক বাঙ্গালী সমাজেয় । বিবৰ্ত্তন বুঝতে পারিব না-এ দেশে সংবাদপত্র-প্রবর্তনের বিবরণ জানিতে । পারিব না। আমাদের দুঃখ এই যে, সম্পাদক মহাশয় পুস্তকের ভাষা সংশোধনে ও পুস্তকে গৃহবিচ্ছেদাদির বিবরণ বর্জনে যথেষ্ট মনোযোগী হয়েন নাই। সন। ১২৩৬ সালের ১৫ই আষাঢ় (২৭ শে জুন, ১৮২৯ খৃষ্টাব্দ) কলিকাতার : শিমলা পল্লীতে পৈত্রিক গৃহে গিরীশচন্দ্রের জন্ম হয়। সে কালের বাঙ্গালীপাড়ার সর্বশ্রেষ্ঠ ইংরাজী বিদ্যালয় ওরিয়েণ্টাল সেমিনারীতে গিরীশচন্দ্রের - শিক্ষারম্ভ হয়। তিনি একজন প্ৰতিভাশালী ছাত্র ছিলেন। কিন্তু অঙ্কশাস্ত্ৰে তাহার অনুরাগ ছিল না। তাই বিদ্যালয়ে তিনি প্রতিষ্ঠালাভ করিতে পারেন । নাই। বিদ্যালয় পরিত্যাগের পর কোন আত্মীয়ের চেষ্টায় তিনি রাজস্ববিভাগে । মাসিক ১৫১ টাকা বেতনের একটি চাকরীতে বহাল হয়েন। কিছুদিন পরে - -১৮৪৭ খৃষ্টাব্দে—ঐ পদ ত্যাগ করিয়া তিনি মিলিটারী অডিটার জেনাবুলের : আফিসে মাসিক ৫০২ টাকা বেতনের একটি চাকরী পায়েন। স্বনামধন্য: হরিশচন্দ্র মুখোপাধ্যায়ও তখন ঐ আফিসে সামান্য বেতনে চাকরী করিতে- , ছিলেন। যখন হরিশচত্রের বেতন বৰ্দ্ধিত হইয়া ১০.০১ টাকা দাড়াইল, তখন । গিরীশচন্ত্রেরও বেতনবৃদ্ধি হইল। মৃত্যুকালে হরিশচন্দ্র মাসিক ৩০০২ টাকা । বেতন ভোগ করিতেছিলেন। গিরীশচন্দ্ৰ তাহার অপেক্ষা উচ্চতর পদ লাভ