পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (চতুর্থ বর্ষ).pdf/৪১৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


૭૧ আৰ্য্যাবৰ্ত্ত s སོག་པོ--4ས། ज९थJ । টেলিগ্রাম প্ৰকাশ করিতে দিয়া হরিশচন্দ্ৰকে সাহায্য করিতেন ; সহকারী মিলিটারী অডিটার জেনারল কৰ্ণেল ম্যালিসন সময় সময় ‘পেট্টিয়টে” লিখিতেন। গিরীশচন্দ্রের জ্যেষ্ঠ পুত্র মিলিটারী পে–একজামিনার আফিসে কাৰ্য্যে প্ৰবেশ করিলে দ্বিতীয় পো-মাষ্টার জেনারেল কৰ্ণেল অসবোর্ণ প্ৰথমেই ভঁহাকে জিজ্ঞাসা করেন, “তুমি কি সংবাদপত্রে লিখিয়া থাক ?” তিনি সংবাদপত্রে লিখেন না জানিয়া কৰ্ণেল তঁহাকে বলেন, পিতৃপদবীর অনুসরণ করা তাহার কৰ্ত্তব্য । ১৮৫৯ খৃষ্টাব্দে ডালহাউসী ইনষ্টিটিউট সংস্থাপিত হইলে সংস্থাপনকাৰ্যোর প্ৰধান উদ্যোগী কৰ্ণেল ম্যালিসনের চেষ্টায় গিরীশচন্দ্র ও ক্ষেত্ৰচন্দ্ৰ উহার সভ্য নিৰ্বাচিত হয়েনি। ভারতবাসীর পক্ষে ইহার সভ্যপদলাভ এই প্ৰথম । গিরীশ তথায় সভাধিবেশনে তর্কবিতর্কে যোগ দিতেন-সময় সময় তিনিই প্ৰধান বক্তা হইতেন। এই সভায় ডাক্তার ডাফ ও সার মর্ডান্ট ওয়েলস প্রমুখ প্ৰসিদ্ধ বক্তগণের মধ্যেও গিরীশচন্দ্ৰ সুবক্তা বলিয়া পরিগণিত হইয়াছিলেন। বিটন সোসাইটির প্রতিষ্ঠা হইতেই তিনি উহার সহিত সংসৃষ্ট ও আমন্ত্রণ উহার সাহিত্য ও দর্শন বিভাগের সম্পাদক ছিলেন। ১৮৬৭ খৃষ্টাব্দে বেঙ্গল সোসালসায়েন্স অ্যাসোসিয়েশন প্রতিষ্ঠিত হইলে তিনি তাহার কাৰ্য্যনিৰ্বাহক সমিতির সদস্য মনোনীত হয়েন। এতদ্ব্যতীত তিনি উত্তরপাড়া হিতকরী সভার সহকারী সভাপতি ছিলেন । পারিবারিক কারণে কলিকাতা ত্যাগ করিয়া বেলুড়ে বাস করিতে আরম্ভ করিলে তিনি হাওড়া ক্যানিং ইনষ্টিটিউটের ও বেলুড় বিদ্যালয়ের সহিত সংসৃষ্ট হয়েন এবং হাওড়া জিলা স্কুল কমিটীর সভ্য ও মিউনিসিপ্যালিটীর কমিশনার নির্বাচিত হয়েন। কালিপ্ৰসন্ন সিংহের অর্থানুকূল্যে শম্ভুচন্দ্ৰ মুখোপাধ্যায় afia Mookerjee's Magazinc affs করিলে গিরীশচন্দ্ৰ তাহার লেখকশ্রেণীভুক্ত হয়েন। তঁহার ইংরাজী রচনানিপুণতার প্রমাণ স্বরূপ বলা যাইতে পারে-ডালহাউন্সি ইনিষ্টিটিউট একটি খৃষ্টমাস গল্পের জন্য পুরস্কার ঘোষণা করিলে গল্পলেখকদিগের মধ্যে প্ৰসিদ্ধ ঐতিহাসিক ম্যালিসন প্রথম ও গিরীশচন্দ্ৰ দ্বিতীয় স্থান অধিকৃত করিয়াছিলেন । কালিপ্ৰসন্ন সিংহের অর্থে চালিত ও শম্ভুচন্দ্র কর্তৃক সম্পাদিত ‘হিন্দু পেটুয়ট” ভূম্যধিকারী-সম্প্রদায়ের মুখপত্রে পরিণত হইলে গিরীশচন্দ্ৰ প্রজাসাধারণের পক্ষ হইতে একখানি সংবাদপত্র প্রচার করিতে উদ্যোগী