পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (তৃতীয় বর্ষ).pdf/১১৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আৰ্যাবৰ্ত্ত।। ৩য় বর্ধ-২য় সংখ্যা। , هلا_ জঙ্গলের মধ্যে বহুদূরবিস্তৃত ইষ্টকস্তােপ পড়িয়া আছে। প্রবাদ, এই স্থানে প্ৰসিদ্ধ খাঁ জাহানালির সোণাবিবি ও রূপাবিবি নায়ী দুইটি উপপত্নী বাস করিতেন। তঁহাদের প্ৰেকৃত নাম এরূপ না হইতে পারে। সম্ভবতঃ খাঁ। জাহানালির ভালবাসার তারতম্য সুচনার জন্য র্তাহাদের এরূপ নামকরণ হইয়াছিল। ‘ যাহা হউক এই স্থানেই খাঁ জাহান স্বয়ং বাস করিতেন। এই স্থানে বহুসংখ্যক ইষ্টকের ঢিপি জঙ্গলমণ্ডিত হইয়া রহিয়াছে। একটি প্রস্তরের স্তস্ত এ স্থানে পড়িয়া আছে। স্থানটি যে চতুর্দিকে প্রাচীর ও পরিখাবেষ্টিত ছিল তাহার সুস্পষ্ট চিহ্ন বৰ্ত্তমান । নদীর দিকে যে বাড়ীর সিংহদ্বার ছিল, তাহাও বুঝা যায়। পূৰ্ব্বদিকে গড়ের মধ্যেই “বিযপুকুরিয়া” নামক পুষ্করিণী—এখনও জলপূৰ্ণ আছে ; লোক বলে, সোণাবিবি। সপত্নীবিদ্রোহে বিষপান করিয়া এই পুষ্করিণীতে ঝাঁপ দিয়া মরিয়াছিলেন। বাগেরহাট বা পুরাতন খলিফতাবাদে যে টাকশাল ছিল, ইহারই সন্নিকটে কেহ কেহ তাহারও স্থান নির্দেশ করেন। এই স্থান খনন করিলে অনেক নূতন তথ্য আবিষ্কৃত হইতে পারে। খুলনা হইতে আলাইপুর। পৰ্য্যন্ত ষ্টীমারে যাইয়া তথা হইতে নৌকাযোগে ৩৪ ঘণ্টায় বাগেরহাট যাওয়া যায়। * r (৫) আগরা ও আগরবাড়ার স্প—খুঘন জিলায় সুবিখ্যাত কপিলমুনি হইতে এক মাইল দূরে আগরা নামক স্থানে ২।৩টি স্তুপ আছে। উহার মধ্যে ইষ্টকনিৰ্ম্মিত বাড়ী ছিল ; একটি খনন করিয়া ইহার প্রমাণ পাওয়া গিয়াছিল। ঘরগুলির প্রাচীর ও জানালা খনিত স্থানে অবতরণ করিলে দেখা গিয়াছিল। তালা হইতে তিন চারি মাইল উত্তর-পূর্ব কোণে একটি প্রান্তরমধ্যে আগরঝাড়ার স্তুপ দেখা যায়। এই স্থানে দুইটি বাড়ী ছিল বলিয়া বোধ হয় ; উহাদিগকে বড় বাড়ী ও ছোট বাড়ী বলে। শুধু এই স্থানে নহে, চুকনগর নামক স্থান হইতে দক্ষিণে চাদ খালি পৰ্যন্ত ২০২৫ মাইলের মধ্যে অনেক স্থানে এইরূপ টিপি দেখা যায়। পূর্বে এক সময়ে এই সকল স্থানে সমৃদ্ধ পল্পী ছিল, এবং এই সকল স্থানে সঙ্গতিপন্ন লোকের ইষ্টকনির্মিত বাসগৃহ বা মন্দির মসজিদাদি ছিল। ইহার মধ্যে বড় দুই একটি খনন করিয়া দেখা যাইতে পারে। । 鱼 ; (৬) বিজয়তলা।—যশোহর জিলার ভৈরব নদের কূলে তপন ভাগ ( বা তপোবনভাগ) নামক গ্রামে বিজয়তলা বলিয়া একটি স্থান আছে। i arroquia su SLS tiuB DBD D ESDD DEEE ED BBLS BBBDBD S