পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (তৃতীয় বর্ষ).pdf/১২৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Y S o আৰ্য্যবৰ্ত্ত । ७ -२.श १६ ।। দিতে না পারিয়া মিষ্টার দাস কন্যাকে লইয়া কলিকাতায় আসিয়াছিলেন ; কন্যাকে সভা সমিতি সর্বত্র লইয়া যাইতেন ; উদ্দেশ্য-যন্ত সত্বর সম্ভব তাহার বিবাহ দেওয়া ।- যে কথা চিকিৎসকরূপে আমি জানিতে পারিয়াছিলাম, তাহা ব্যক্ত করিবার অধিকার আমার ছিল না। আমি সে কথা ব্যক্তি করিলেও অন্য প্রমাণের অভাবে তুমি বিশ্বাস করিতে কি না সন্দেহ। অথচ তাহাকে বিবাহ করিলে তোমার জীবন ব্যর্থ-বেদনাময় হইবে । এ অবস্থায় আমার কি করা কীৰ্ত্তব্য ? আমি অনেক ভাবিলাম। ভাবিয়া কিছু স্থির कब्रिgठ १iत्रिव्ाम का ।' অমিয়নাথ ও ঘুমা বিস্ময়পূর্ণ নয়নে সুরেন্দ্ৰকুমারের দিকে চাহিয়া রহিল। সুরেন্দ্ৰকুষার যেন অবসন্ন বোধ করিতেছিল। কিন্তু উৎসাহে সে অবসন্নতা দূর করিয়া সে বলিতে লাগিল,-“আমি ভাবিয়া দেখিলাম—তোমার উপর বৃহৎ ও ব্যয়বহুল সংসারের ভার রহিয়াছে-আমার কেহ নাই। আমি ভাবিয়া দেখিলাম-যখন কোনরূপে কন্যার বিবাহ দেওয়াই মিষ্টার দাসের উদ্দেশ্য তখন তিনি আমাকেও কন্যাদান করিতে পারেন। বিশেষ সম্পদে তোমার অপেক্ষা আমি অধিক ভাগ্যবান । আমার সঙ্কল্প স্থির হইল । মিষ্টার দাস আমার প্রস্তাবে সম্মতি দিলেন। তাহার পর-তাহার পর এই দশ বৎসরে স্বাস্থ্য, সুখ, অর্থ সব শেষ করিয়াছি। চারুশীলার সকল যন্ত্ৰনার অৱসান হইয়াছে-আমারও সব যন্ত্রণা শেষ হইতেছে। অমিয়নাথ, আজি কি মৃত্যুর কুলে তোমার বন্ধুত্ব ফিরিয়া পাইব ?” উত্তেজনায় ও শ্রমে অবসর হইয়া সুরেন্দ্ৰকুমার চক্ষু মুদিত করিল। অমিয়নাথ তাহার মলিন শয্যা পার্থে বসিয়া তাহার বক্ষে মুখ রাখিয়া বিহ্বল ভাবে কঁাদিতে কঁাদিতে বলিল, “বন্ধু ! বন্ধু! তুমি আমাকে সুখী করিবার জন্য স্বেচ্ছায় গরল পান করিয়াছ ; আর আমি-আমি তোমাকে कि ७ांविशांछि !” A. ܘ সুরেন্দ্ৰকুমারের আত্মত্যাগের কথা শুনিতে শুনিতে রমা কঁাদিতেছিল । কিন্তু অপ্ৰত্যাশিত ঘটনার অতর্কিত সংঘটনে রমণী স্বভাবতঃই পুরুষ অপেক্ষা সহজে স্থির হইয়া কৰ্তব্যনিৰ্দ্ধারণ করিতে পারে। রযা ক্ষক্ষদ্বারে দণ্ডায়মান পথপ্রদর্শককে বলিল--"গৃহস্বামীকে ডাকিয়া আন ৷”