পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (তৃতীয় বর্ষ).pdf/১২৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


9) 3 चार्शjांद6 । ७श दीर्ष-२श न१थT । প্ৰবাদ-প্ৰসঙ্গ । a)0. আমরা অনেক সময় কথোপকথনের মধ্যেই প্রয়োজন অনুসারে প্রবাদবচনের উল্লেখ করিয়া থাকি। প্ৰবাদগুলিতে উদ্দেশ্যানুরূপ কাৰ্য্য সিদ্ধ হইয়া থাকে বটে ; কিন্তু প্ৰবাদের ব্যবহারক। তাহার ইতিহাস সকল সময়ে অবগত থাকেন না। কোন প্ৰবাদ কি প্রকারে, কোন ঘটনা অবলম্বন করিয়া উৎপন্ন হইয়াছে তাহা তাহার জানা থাকে না । অনেক দিনের কথা পাদরী মিষ্টার লঙ্গ (Long) প্ৰবাদ সংগ্ৰহ করিয়া একখানি পুস্তক প্ৰকাশ করেন। তাহার পর দ্বারকানাথ বসু ‘প্ৰবাদমালা’ প্ৰকাশ করেন। অতঃপর ‘ভারতী’ নামক পত্রিকায় শ্ৰীযুক্ত শৈলেশচন্দ্র মজুমদারপ্রমুখ লেখকগণ বাঙ্গালা প্ৰবাদ সম্বন্ধে কিছু কিছু আলোচনা করিয়াছেন। ইহা ভিন্ন প্রবাদ সম্বন্ধে আর কাহারও বিবরণ কোথাও প্রকাশিত হইয়াছে বলিয়া আমার জানা নাই ।* আমার মনে হয়, প্ৰবাদগুলি যেমন প্রয়োজনীয় তাহাদিগের বিবরণও সেইরূপ। বিষয়ের আবশ্যকতা ও গুরুত্বের উপর লক্ষ্য রাখিয়া বৰ্ত্তমান প্ৰবন্ধের অবতারণা করা श्श्व् । ( ১ ) “লাগে টাকা দেবে গৌরী সেন”। কলিকাতায় বিখ্যাত প্রাচীন অধিবাসীদিগের মধ্যে বৈষ্ণবচরণ সেঠ সৰ্ব্বাপেক্ষা পুরাতন লোক ছিলেন। প্ৰায় এক শত বৎসর পূর্বে বড়বাজারে তঁাহার বাসস্থান ছিল। তঁহার সময়ে যে সমস্ত লোক ব্যবসা বাণিজ্য করিতেন। তঁহাদিগের মধ্যে বৈষ্ণব বাবু একজন অত্যন্ত ন্যায়পরায়ণ এবং ধনী ব্যক্তি ছিলেন। তঁহার ন্যায়পরতা সম্বন্ধে অনেক গল্প আছে। তেলিঙ্গানার রাজকুমার রামরাজা কলিকাতা হইতে তঁহার দেবারাধনার জন্য গঙ্গাজল লইয়া যাইতেন। কিন্তু সেই গঙ্গাজল বৈষ্ণবচরণের মোহরাঙ্কিত না হইলে তিনি ব্যবহার করিতেন না। একদা বৈষ্ণবচরণ গৌরী সেন নামক তঁহার অংশীদারের নামে প্রচুর রাঙতা ক্রয় করিয়াছিলেন। পরে দেখা গেল, সেই রাঙতার অধিকাংশই রৌপ্যমিশ্ৰিত । বৈষ্ণবচরণ এই রাঙতার কারবারে যাহা লাভ হইল। তাহার একপয়সাও গ্রহণ করিলেন না। তিনি বলিলেন, যখন জিনিষ গৌরী সেনের নামে ক্রীত হইয়াছে তখন তাহার লাভের অংশ অবশ্যই গৌরী সেনের প্রাপ্য হইবে। গৌরী sur-to S S SDBBDGS t L LEESKK ZzSYLDtD tLLL SYuBDDDDL ܒܝܢܝܚ