পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (তৃতীয় বর্ষ).pdf/১৮৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পাষাণের কথা । እ &ኃóቅ ו סילס כ שזאןtש হইতে কলসের পর কলস সুরা এই কুটীরসমূহ মধ্যে আনীত হইতেছে ; কিন্তু বিক্রেতা সকলের নিকট মূল্য পাইতেছে না। পুরাতন পাষাণখণ্ডসমূহে নিৰ্ম্মিত নূতন সঙ্ঘারামে ভিক্ষু ও শ্রমণগণের সহায়তা করিবার নিমিত্ত বহু সংখ্যক বীরাঙ্গনার আবির্ভাব হইয়াছে। ভিক্ষুগণ কাষায়ের পরিবর্তে রক্তবর্ণ বস্ত্র পরিধান করিয়াছেন। সঙ্ঘারামেও ক্ষুদ্র বৃহৎ নানাবিধ আকারের মৃন্ময় কলস আনীত হইতেছে, ভিক্ষু ও শ্রমণগণ সাধনার জন্য আবশ্যক।ানুযায়ী বিভিন্ন প্রকারের মধু আনয়ন করিতে অনুচরবর্গকে আদেশ প্ৰদান করিতেছেন। বিভিন্ন আকারের ও বিভিন্ন বর্ণের কলসের মুখে পুষ্প বা ফলের আচ্ছাদন রহিয়াছে, কোন কলসের মুখে কদম্ব বা যাব শীর্ষ, কোন কলসের মুখে। প্ৰফুল্ল কমল বা মধুকপুষ্প, কাহারও মুখে আম্রশাখা এবং কাহারও। মুখে বা পক্ক কদলী । রজনীসমাগমে মধুর প্রয়োজনের আধিক্য হইত, বরবর্ণিনী শক্তিগণের সাহায্যে সদ্ধৰ্ম্মের উদ্দেশ্যে নিবেদিত কলস কলস মধু প্রতি রজনীতে যথাস্থানে প্রেরিত ও উপস্থিত হইত। বুদ্ধ বা বোধিসত্ত্বগণের নাম করিলেই হইত। সময়ে সময়ে তাহার আবশ্যকও হইত না, সজঘারামবাসী অনেকেই বুদ্ধ বা বোধিসত্ত্বনামে অভিহিত হইতেন। নিশীথে সঙ্ঘারাম হইতে নৃত্য ও গীতের শব্দ উত্থিত হইয়া প্রাচীন পাষাণসমূহের মনে বুদ্ধ ও বোধিসত্ত্বগণের সিদ্ধি সম্বন্ধে সন্দেহ উৎপাদিত করিত। কখনও কখনও মহাশক্তিগণ বুদ্ধবোধিসত্ত্বাদির আশ্ৰয় পরিত্যাগ করিয়া সৈনিকগণের আশ্রয় গ্ৰহণ করিত । তখন শক্তির অধিকারের জন্য সৈনিকে ও ভিক্ষুতে ভীষণ কলহ হইত ও সময়ে সময়ে সঙ্ঘারামবাসী ও শিবির বাসিগণের মধ্যে ক্ষুদ্র রুণাভিনয়ও হইয়া যাইত ; সেনাদলের পাশ্বচারিণীরাও যে সময়ে সময়ে সজঘারামে আশ্ৰয় লাভ না করিত তাহাও নহে। সন্ধিৰ্ম্মের এমনই মহিমা যে, সঙ্খারাসমধ্যে উপস্থিত হইবামাত্র তাহারাও আচারপরিবর্তন করিয়া মহাশক্তিরূপ ধারণ করিত । এইরূপে বহুকাল অতিবাহিত হইল, স্তুপ ও বস্তুসংস্কার, এবং মন্দিরাদিনিৰ্ম্মাণকাৰ্য্য শেষ হইলে শুনিলাম, সম্রাট তীর্থদর্শনে আসিবেন ও তঁাহার সহিত নানা দিগেদশ হইতে বুদ্ধ, বোধিসত্ত্ব ও স্থবিরগণ আগমন করিবেন। র্তাহাদিগের বাসস্থানসমূহ নিৰ্ম্মিত হইতে লাগিল। এক দিন বহু দূর হইতে বহু যানবাহন নূতন বুদ্ধ, নূতন বোধিসত্ব ও শক্তিরূপিণী শত শত নাৰী বহন করিয়া অপসন্নিধানে উপস্থিত হইল। ক্রমে স্তুপের চতুঃপার্থে