পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (তৃতীয় বর্ষ).pdf/২০৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আষাঢ়, ১৩১৯ । ম্যালেরিয়া ও তাহার প্রতিকার । እኳ” ¢ (খ ) ম্যালেরিয়া রোগ উপস্থিত হইলে কি প্রকারে উহাকে চিকিৎসার দ্বারা সহজে দূর করিতে পারা যায় কিংবা চিকিৎসার দ্বারা কি প্রকারে উহার আক্রমণ হইতে অব্যাহতি পাওয়া যায়, এ সম্বন্ধে উপদেশ দিতে আমার কোন অধিকার নাই। ডাক্তারগণ এবিষয়ে উপদেশ দিবেন। তথাপি এই প্ৰবন্ধ সাধারণ লোকের জন্যও লিখিত বলিয়া এবং ম্যালেরিয়া এমনই সাধারণ রোগ যে, অনেক আনাড়িকেও বাধ্য হইয়া উহার চিকিৎসা করিতে হয় বলিয়া, এতৎ সম্বন্ধে দুই একটি স্থূল কথা এই স্থলে লিপিবব্ধ করা আবশ্যক বোধ করিলাম। ডাক্তারগণের মতে কুইনাইন ম্যালেরিয়ার ঔষধ ; ম্যালেরিয়াযুক্ত স্থানে যাহাদিগকে বাস করিতে হইবে তাহাদিগকে লবণ, তৈল ও মশলার খরচের ন্যায় দৈনিক কুইনাইন খরচারও ব্যবস্থা রাখিতে হইবে। কেহ কেহ বলেন যে, প্ৰত্যহ দুই এক গ্ৰেণ করিয়া কুইনাইন খাওয়া উচিত। অন্য অনেকে বলেন, প্ৰত্যহ অল্প অল্প করিয়া কুইনাইন না খাইয়া সপ্তাহে দিন দুই উপরি উপরি তিন চারি গ্ৰেণ করিয়া খাইবে । শেষোক্তটি আধুনিক মত। ঐ রূপভাবে কুইনাইন সেবন করিলে আর ম্যালেরিয়ার আক্রান্ত হইবার সম্ভাবনা থাকিবে না । ( গ ) আমাদের শরীরকে এরূপ ভাবে শিক্ষিত করা আবশ্যক, যাহান্তে উহার রোগ হইতে অব্যাহতি পাইবার ক্ষমতা জন্মে। এই বিষয়টিই আমার বৰ্ত্তমান প্ৰবন্ধের প্রধান আলোচ্য বিষয়। ম্যালেরিয়া সম্পর্কে এ বিষয়ে BBDBDDB BBDBDBB DBBD BBDD DD DBDDBB DDD SS iD BBBDB DBDD এই নূতন মতবাদ সম্বন্ধে এ প্রবন্ধে আমি বিশদরূপে আলোচনা করিব । “শরীরের নাম মহাশয়, যাহা সহাও छाशरे সয়” এই প্ৰবাদ বাক্য আমাদের দেশে বহুকাল হইতে প্রচলিত আছে। শরীরের সহিষ্ণুতাশক্তি যে অত্যন্ত অধিক সে বিষয়ে সন্দেহ নাই। একজন প্রধান অহিফেনসেবী যে মাত্রায় আফিং এক এক বারে সেবন করেন, অনভ্যস্ত তিন চারি ব্যক্তির উহ! সেবনে প্ৰাণ যাইবার সম্ভাবনা ; ডারউইন বরফের দেশে সম্পূৰ্ণ অনাবৃতদেহ লোক অবিচলিতভাবে বাতাসে বসিয়া আছে, দেখিয়াছিলেন । LLLLLDD DiDB BBBLDSsDu BDBBDB DD DBTDDDB BBDS D DB B SBDBBD বিনাশ করিবার জন্য কোন কন্যাকে শিশুকাল হইতে একটু একটু করিয়া বিষ খাইতে অত্যন্ত করিয়া বিষকন্যা প্ৰস্তুত করিত। শরীরের অভ্যাসSSi BBDB DB DDD DD BD DDB BDBS