পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (তৃতীয় বর্ষ).pdf/৩৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বৈশাখ, ১৩১৯ । अणुळे-फ्रका s' সে ঘরে তোরঙ্গ গুছান শেষ করিয়া দালানে আসিলেই জ্যেষ্ঠ বধু বলিলেন, “শুনেছি, ঠাকুরবি, হাল আইনে তোমাদের পুরাতন ব্যবস্থা আর চলিবে না।” বিরাজা হাসিয়া বলিল, “কি বড় বৌদিদি ? তোমার কি সোজা কথা বলিতেঁ নাই ? “কি করি বল, ঠাকুকি, আমরা বঁকা মানুষ ঠাকুর জামাইয়ের মত সোজা। কথা কোথায় পাইব ?” O মধ্যম বলিলেন, “তুমি শুন নাই ?” বিরজা বলিল, “কি ?” “নুতন ঠাকুর জামাই যে উপস্থিত!” বিরাজা বিস্মিত ভাবে ভ্রাতৃজায়ায় দিকে চাহিল। জ্যেষ্ঠা বলিলেন, কেমন, ঠাকুরবি-এ ব্যবস্থা নূতন কি না ? আমাদের এক ঠাকুর জামাই ত বিদেশে বিদেশেই ঘুরেন, আর একজন পড়ার ছুতা করিয়া এ পাড়া মাড়ান না ; এবার আবার আর এক রকম দেখা গেল। বলে ‘কালে কালে দেখােব কত! দেখে দেখে হ’লাম হত।” दि वा ?” h বিরজা বলিল, “তা, বড় বৌদিদি, নূতন রকম দেখাই ত ভাল। এখনই হত হইবে কেন ? বালাই !” যখন তিনজনে এইরূপ কথোপকথন হুইতেছিল, তখন তাহার সেজ বৌদিদির সঙ্গে সরোজ ঘাট হইতে ফিরিল। তাহাকে দেখিয়া বড় বধু বলিলেন, “সরোজা, আহলাদে যে আর মাটীতে পা পড়ে না ।” O সরোজা সহসা এ মন্তব্যের কারণ অবগত ছিল না-বুঝিতেও পারিল না। সে জিজ্ঞাসা করিল-“কি, বড় বৌদিদি ?” বড় বধু বলিলেন, “বাহিরে যাইয়া দেখ।” সরোজা ও সেজবৌ চলিয়া গেলে বড় বধু মধ্যমাকে সম্বোধন করিয়া বলিলেন, “তা দেখ, ভাই, যদি এবার সরোজা হইতে সোজবৌয়ের অপবাদ ঘুচে । আমার ত বোধ হয় এবার তাহার দোসর জুটিল।” भjभी इजिजन । . DBDD DD DB TD BDBD DBD DDD DuS BBDDBD বিবাহের রাত্ৰিতে গৃহে বিপুল, আনন্দোৎসবের মধ্যে তাহার মুখে ষে ।