পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (তৃতীয় বর্ষ).pdf/৪১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


J7 ʻ ', 2マ* >o〉s ਲੋ-5 | Sa সেই দিন আহারান্তে শয়নগৃহে প্ৰবেশ করিয়া বিরজা দেখিল, ব্ৰজেন্দ্ৰ তখনও সে কক্ষে আইসে নাই। কক্ষমধ্যে • উত্তাপাতিশয্যে সে একখানি মাদুর লইয়া সম্মুখে মুক্ত ছাতে গোল—তথায় মাদুরখানি বিছাইয়া তাহাতে শ্ৰান্তদেহ ঢালিয়া দিল। বৈশাখ মাস। দিবাভাগে রৌদ্রতাপে তপ্ত নগরীর বায়ু যেন অগ্নির মত বোধ হয়। সন্ধ্যার পর গৃহাদি সঞ্চিত তাপ বিকীর্ণ করিতে থাকে। কেবল যে দিন “কাল বৈশাখী’র কাল মেঘক পশ্চিম গগনে দিন গ্ৰন্থশোভা মুছিয়া প্রকৃতির মুখ অন্ধকার করিয়া দেয়-প্রবল পবন ধূলির ধ্বজা উড়াইয়া অট্টহাস্যে বহিয়া যায়-বিদ্যুদালোকবিচ্ছিন্ন মেঘের হৃদয় হইতে বারি বরিয়া দীর্ণ ধরাবক্ষে পতিত হয় সে দিন সন্ধ্যার পর ধৌত ধূলি জলকণসঙ্গশীতল সমীরণের স্পর্শ সুখদ বোধ হয়। পূর্বদিন অপরাহে আকাশে মেঘ দেখা দিয়াছিল বটে, কিন্তু পরুষ পবনে মেঘমালা স্থির থাকিতে পারে নাই-বারিবর্ষণ হয় নাই। আজ আকাশের প্রান্তে প্ৰান্তে কেবল মেঘের আভাস-লঘু মেঘে শীর্ণ বিদ্যুতের বিকাশ রোগীর শীর্ণ অধরে হাসির মত দেখাইতেছে ; গগনমধ্যভাগে মেঘলেশ নাই-সহস্র তারকার দীপ্ত দীপ্তি । এতক্ষণ বাতাস যেন নিশ্চল ছিল। ক্রমে ধরাতালোখিত-গৃহাদি-বিকীর্ণ তাপ সরাইয়া দিয়া নৈশ পবন প্রবাহিত হইল ;-তাহার স্পর্শে বিরজার বসন প্ৰকম্পিত হইতে লাগিল। এ দিকে খণ্ড শশী চক্রবাল হইতে উঠিয়া মধ্যগগনে উপনীত হইল । তাপতপ্ত দীর্ঘ দিবসের পর স্নিগ্ধ পবনের সুখদম্পর্শে বিরজার নিদ্ৰাকর্ষণ হইল। ততক্ষণে ব্ৰজেন্দ্ৰ শয়নকক্ষে আসিয়া উপস্থিত হইল। শয্যায় পত্নীকে দেখিতে না পাইয়া সে কক্ষদ্বারে আসিয়া দেখিল, মুক্ত ছাতে মাদুর বিছাইয়া বিরজা ঘুমাইয়া পড়িয়াছে। সে নিঃশব্দপদসঞ্চারে আসিয়া পত্নীর পার্থে দাড়াইল-মুগ্ধনেত্ৰে পত্নীৱ জ্যোৎস্নালোকে উদ্ভাসিত সৌন্দৰ্য্য দেখিতে লাগিল। সে মুখে কি স্নিগ্ধ প্ৰফুল্প ভাব! নয়নযুগল মুদিত, যেন অসীম সৌন্দৰ্য্য ও সৌরভ লইয়া কমল-কোরক দিবালোকবিকাশে ফুটিয়া উঠিবার জন্য অপেক্ষা করিতেছে! কয়গাছি চুৰ্ণ কুন্তল কবরীবন্ধন মুক্ত হইয়া কপালে আসিয়াছে-কেহ স্বেদজড়িত হইয়া কপালে বন্ধ-কেহ পবন হিল্লোলে বিকম্পিত। ব্ৰজেন্দ্র মুগ্ধনেত্ৰে পত্নীকে দেখিল, তাহার পর ধীরে ধীরে পত্নীর পার্থে বসিল ; তাহার পর ধীরে ধীরে পত্নীর অধর চুম্বন করিল। মুখসুপ্ত । DBB BDBDDBD DB BDSB BB D DBDBB DDD EDiDS SiS