পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (তৃতীয় বর্ষ).pdf/৪৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


OS , , , আৰ্য্যবৰ্ত্ত । , ७ क्षै--» १६ ।। যাহাতে কোন অব্যবহাৰ্য্য পুষ্করিণী, নদী বা মাঠে গিয়া পতিত হয়, তাহারা তাহার ব্যবস্থা করিয়া দিয়া' থাকে। সকলেই অবগত আছেন যে, পল্লীগ্রামে ছোট ছোট খানা, পয়ঃনালী বা গৰ্ত্তে জল জমিয়া যেরূপ দারুণ দুৰ্গন্ধময়, কৃষ্ণবর্ণ ও কীটসন্ধুল জল প্ৰস্তুত হয়, পুষ্করিণী প্রভৃতির জল কখনই সেরূপ কদৰ্য্য হইয়া উঠিতে পারে না। কারণ, পুষ্করিণী প্রভৃতিতে মৎস্যাদি থাকিয়া, কীট প্রভৃতিঁকে ধ্বংশ করিয়া তথাকার জলের পবিত্রতা অনেক পরিমাণে রক্ষা করে। অতএব যে সকল পুষ্করিণীতে গ্রীষ্মকালে জল থাকে না এবং• যাহাতে মৎস্যাদি নাই, তাহদের স্বত্বাধিকারিগণ যাহাতে আইনতঃ বা অন্য উপায়েহয়। উহাদের সংস্কার করিতে নহে ত উহাদিগকে ভরাট করিতে বাধ্য হয়েন, তাহার ব্যবস্থা করিতে হইবে। যে প্রণালীতে দেশের রেলপথসমূহ ও এক নগর হইতে অন্য নগর সংযোগকারী রাস্তাসমূহ নিৰ্ম্মিত হইতেছে, তাহা একান্ত ভ্রান্ত। উহার দ্বারা রেলপথের উভয় পাশ্বে বহুসংখ্যক ডোবার সৃষ্টি হইয়াছে মাত্র। দেশে রেল ও রাস্ত হইয়া কায নাই বলা চলে না। রাস্তা প্ৰস্তুত করিবার মাটী উহার * উভয় পার্থের বহু স্থান হইতে অল্প অল্প করিয়া না লইয়া এক এক স্থান হইতে প্রচুর পরিমাণে লওয়া শ্ৰেয়ঙ্কর; তত্ত্বারা সেই সেই স্থানে এক একটি বড় থাল বা দীর্ঘিকা হইয়া যাইবে । এরূপ ভাবে মাটী সংগ্ৰহ করিতে যে ব্যয় হইবে, তাহা সম্ভবতঃ ঐ প্রকারে পথ নিৰ্ম্মাণ করাতে যে জমী লাভ হইবে তাহা এবং ঐ সকল পুষ্করিণীর মাছ হইতে উঠিয়া যাইবে ; এবং তদ্বারা দেশের স্বাস্থ্যেরও যে উন্নতি হইবে তাহাও নিতান্ত কম লাভ নহে। একটা আপত্তি উঠিতে পারে যে, ডোবাগুলির ন্যায় ধানের জমিগুলিও বৎসরের কয়েক মাস ধরিয়া জলাশয়ে পরিণত থাকে, তবে সেগুলি সম্বন্ধে বিশেষ আপত্তি না করিয়া ডোবাগুলির বিপক্ষে আমরা এত গোলমাল করি।-- তেছি কেন ? ধানের জমিগুলি যে ম্যালেরিয়া-বিস্তারের পক্ষে কতকটা সহায়তা করে, তদ্বিষয়ে সন্দেহ নাই। বঙ্গদেশের ন্যায়, ইটালিরও যে সকল স্থানে চাষ ভাল হয়, সেই সকল স্থানেই ম্যালেরিয়া অধিক। তবে ধানের জমিগুলি অপেক্ষা, ডোবা বা অপ্ৰশন্ত জলাশয়গুলি যে অধিক অনিষ্টকর, তাহা সহজেই বুঝা যাইবে। ডোবা বা অপ্রশস্ত জলাশয়গুলি শুকাইয়া গেলে, তাহার - সরস মুক্তিকায় ওকড়া, জেয়াতে-পাত, শুমুনি, কলমি, হীফা, কুযেখাড়া, কচু ও কয়েক জাতীয় ঘাস ও অন্য কয়েক, জাতীয় উদ্ভিদ জন্সিয়া