পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (তৃতীয় বর্ষ).pdf/৭৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


(S আৰ্য্যাবর্ত ।। ৩য় বর্ষ- ১ম সংখ্যা ব্যর্থ প্ৰেম। চারিদিন ছুটীর পর আফিস খুলিয়াছে-কায্যের বড় ভিড়। আমি ডাক লিয়া চিঠিগুলি বাছিয়া—ভিন্ন ; ভিন্ন বিভাগের জন্য আবশ্যক মন্তব্য লিখিতেছি এমন সময় ভূত্য আসিয়া জানাইল-একজন ইংরাজ মহিলা ম্যানেজারের সহিত সাক্ষাৎ করিতে চাহেন—ম্যানেজার অত্যন্ত ব্যস্ত ; তাই তঁহাকে আমার নিকট পাঠাইয়া দিয়াছেন। তঁহাকে আনিতে উপদেশ দিয়া আমি একখানা চিঠির উপর মন্তব্য লিখিতে প্ৰবৃত্ত লইলাম। কক্ষে প্রবেশ করিয়া মহিলাটি বলিলেন, “আমি এই ব্যাঙ্কের ভূতপূর্ব ডাইরেক্টার মিষ্টার ঘোষের সংবাদ লইবার জন্য আপনাকে বিরক্ত করিতে আসিয়াছি।” শুনিয়া আমি মুখ তুলিলাম। . রমণীর দৃষ্টি আমার মুখে পতিত হইল। তাহার মুখে বিস্ময় ফুটিয়া উঠিল। বোধ হইল, র্তাহার সমস্ত শরীর কঁাপিয়া উঠিল—তিনি যেন অবলম্বনের জন্য সম্মুখস্থ চেয়ারের পশ্চাদ্ভাগ চাপিয়া ধরিলেন। আমি তাহাকে বসিতে অনুরোধ করিলাম। তিনি আমাকে ধন্যবাদ না দিয়া জিজ্ঞাসা করিলেন,--“আপনি কি মিষ্টার ঘোষের-?” • আমি বলিলাম, “আমি তাহার একমাত্ৰ সন্তান ।” আগন্তুকের নয়নে আনন্দালোক সমুজ্জ্বলভাবে আত্মপ্ৰকাশ করিল। তিনি বলিলেন, “আমি মিষ্টার ঘোষের সংবাদ জানিতে আসিয়াছি। আমি এ দেশে পূৰ্ব্বে কখনও আসি নাই। সৌভাগ্য ক্রমে আপনার সহিত সাক্ষাৎ হইয়াছে।” .الم "আমি বলিলাম, “দুই বৎসর তাহার মৃত্যু হইয়াছে।” রমণী বলিলেন, “আমিও তাঁহাই ভাবিয়ছিলাম।”-কিন্তু তঁহার পাণ্ডুবৰ্ণাভ মুখ যেন রক্তশূন্য হইয়া গেল। তাহার শরীর যেন আবার কঁপিয়া উঠিল। আমি সলিলাম, “আমি কি আপনার কোন সাহায্য করিতে পাৰি ?”