পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (তৃতীয় বর্ষ).pdf/৮৭৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


9o अशgाद6 । ৩য় বর্ষ--১২শ সংখ্যা । سو রক্ষা করিতে প্ৰয়াস পাইতেছিল। কত নিশায় সে বিনিদ্র হইয়া সুপ্ত। ভগিনীর মুখে চাহিয়া কাদিয়াছে ; কিন্তু পাছে সে জানিতে পারে এই আশঙ্কায় তাহার নিদ্রাভঙ্গের পূর্বলক্ষণ দেখিলেই নয়ন মুছিয়াছে—সে জাগিলেই তাহার সহিত হাসিয়া কথা কহিয়াছে। কিন্তু ভগিনীর জন্য দুশ্চিন্তা তাহার হৃদয়ে ভারের মত চাপিয়া ছিল। বিরাজা ভগিনীকে কিছু বলিত না বটে ; কিন্তু সরোজাও যে কিছু কিছু বুঝিত না, এমন নহে। যে অনুভূতি সময়সাপেক্ষ তাহার হৃদয়ে ক্ৰমে ক্রমে সেই অনুভূতি হইতেছিল। সেও আপনার ভবিষ্যতের ভাবনা ভাবিতেছিল। তাহারও মুখে চিন্তার ছায়া । সরোজা ভাবিত-কাদিত ; কিন্তু কিছুতেই যতীশচন্দ্ৰকে অপরাধী মনে করিতে পারিত না । বরং কেহ যতীশচন্দ্রের নিন্দ করিলে—তাহার প্রতি ঘূণাসুচক বাক্য প্রয়োগ করিলে তাহার দুই চক্ষু জলে ভরিয়া উঠিত। কিশোরীর অনাবিল প্ৰেম ধৰ্ম্মের নামান্তর মাত্র । হৃদয়ে স্বার্থপরতা স্থায়ী স্থানলাভ করিবার পূৰ্ব্বে-প্রেমের পার্থিবভাবের অনুভূতিলাভের পূৰ্ব্বে-প্রেমে কামনা সঞ্চারের পূৰ্ব্বে কিশোরীর প্ৰেম ধৰ্ম্ম ব্যতীত আর কিছুই নহে। কবির ও সাধকের শ্রাব ব্যতীত তাহার স্বরূপ উপলব্ধি করা সম্ভব নহে। এই প্ৰেম বাস্তবের মধ্যে মানব-হৃদয়ের ঈপ্সিত আদর্শের আভাস দান করে । এ প্ৰেম প্ৰবঞ্চিত করা মহাপাপ। ইহার ক্রমবিকাশ-সন্দর্শন হৃদয়ে স্বৰ্গীয় আনন্দ প্ৰদান করে। যখন আমাদের কণ্ঠে কৈশোরের কুসুমহার কালবেশে শুকাইয়া যায়- তখনও কৈশোরের প্ৰেমৰ্ম্মতি সমুজ্জল রাখিতে পারিলে আমরা ধন্য হইব । তাই সরোজা স্বামীর দোষ দেখিতে পাইত না । উপাসিকা কি কখনও দেবতার ক্ৰটি কল্পনা করিতে পারে ? সে কল্পনাই যে দেবতার দেবত্ব-বিশ্বাসের বিরোধী ! যতীশচন্দ্ৰ তাহাকে ত্যাগ করিয়াছে, সে আবার বিবাহ করিয়াছো-কিন্তু সরোজা তাহার দোষ দেখিতে পাইত না । লোক কেন যতীশচন্দ্রের নিন্দ করে- সে বুঝিতে পারিত না । সে DBBDBDS DBD BDB BBD YYKD DBD DB DYYSSLDDD DBK বিরক্ত হইয়া থাকেন।--তাহাতেই বা তঁহার দোষ কি ? তাহার নিকট যতীশচন্দ্ৰ দেবতা ! যতীশ যে কারণেই হউক তাহার সংবাদ লইতে DDDS DBBBDS DDB BDBD BDBDS D KBBS DBBDE DBD DDD পারিত না । সেই জন্য বিরাজার উপদেশে দেবীচরণ যতীশের সংবাদ