পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (প্রথম বর্ষ).pdf/২৪৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


चांवां, २००१। বিশুদ্ধ জলের অভাব। RRGS) গ্রীষ্মের সময় উহার খাতের উপর শুষ্ক বালুকা ধুধু করিতে থাকে। বাঙ্গালা দেশের অধিকাংশ নদীই মরণের পথে চলিয়াছে। অমন যে পদ্মা, তাহারও আর সে প্রখর তেজ নাই। আরও একটা কারণে পৃথিবীর অনেক স্থানে বিশুদ্ধ জলের মাত্ৰা কমিয়া যাইতেছে। পঞ্চাশ হাজার বৎসর পূর্বে যে হ্রদের জল বিশুদ্ধ-সুপেয় ছিল, এখন তাহার জল লবণাক্ত-অপেয় হইয়াছে । কেন ? বৎসরের পর বৎসর ধরিয়া নিকটবৰ্ত্তী দেশ ধৌত করিয়া বৃষ্টির জল উহাতে পড়িয়াছে। প্ৰতি বৎসর মাটী হইতে উহা অনেক লবণাক্ত পদাৰ্থ লইয়া গিয়াছে। কাযেই হ্রদটি প্ৰতি প্ৰতি বৎসর লবণ ও জল পাইয়াছে। জল শুকাইয়া বাষ্প হইয়া গিয়াছে, কিন্তু উহার সহিত আনীত লবণ যুগ যুগ ধরিয়া সঞ্চিত হইয়া হ্রদটির জল লবণাক্ত कत्रिभigछ । কথা হইতেছে এই যে, যে সকল জলস্রোতের তেজে এককালে এই সকল বিশাল নদী সৃষ্ট হইয়াছিল, এখন কি তাহারা আপনাদের তেজে নদীগুলিকে পুনরায় গড়িয়া লইতে পারে না ? কিন্তু কাৰ্য্যতঃ দেখা যাইতেছে যে, নদীগুলির তেজ কমিয়া গিয়াছে। প্ৰাচীনগণ বলেন, ২০|৩০ বৎসর পূর্বে এদেশে যেরূপ বৃষ্টিপাত হইত এখন তদপেক্ষা অনেক অল্পপরিমাণ বৃষ্টিপাত হয়। কথাটা অনেকে সত্য বলিয়া মানিয়া লইয়াছেন এবং অনেকে ভাবেন, কতকগুলি অরণ্যের উচ্ছেদই এই বৃষ্টির অল্পতার কারণ। এক্ষণে সেই জন্য অরণ্যরক্ষার সুবন্দোবস্ত আরম্ভ হইয়াছে। অরণ্যের উচ্ছেদ ব্যতীত বৃষ্টির অল্পতার কি অন্য কোন কারণ আছে? পাচ হাজার বৎসর পূৰ্ব্বে বৰ্ত্তমান কালের অপেক্ষা অল্প বারিপাত হইত কি না, তাহা জানিবার কোন উপায় নাই। তবে নিম্নলিখিত কারণগুলির আলোচনায় অনুমিত হইবে যে, প্রাচীন কালে বৰ্ত্তমান সময়ের অপেক্ষা অধিক বৃষ্টিপাত হইত এবং আরও পাঁচ হাজার বৎসর পরে বর্তমানকালের অপেক্ষা অনেক অল্প বৃষ্টিপাত হইবে। কারণগুলি এই - (১) সুৰ্য্যের তাপ দিন দিন কমিতেছে। কাযেই সুৰ্য্যের জল শোষণ করিবার ক্ষমতাও দিন দিনা কমিতেছে । (২) সমুদ্র হইতেই সৰ্ব্বাপেক্ষা অধিক মাত্রায় বাষ্প উখিত হইয়া মেঘ নিৰ্ম্মাণে সহায়তা করে। সমুদ্রের জল দিন দিন অধিক মাত্রায় লবণাক্ত হইয়া যাইতেছে।