পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (প্রথম বর্ষ).pdf/২৫৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শ্রাবণ, ১৩১৭। সিদ্ধিদাতা গণেশের বয়স। ২৩৭ যখন অমরসিংহের গ্রন্থে দেখিতে পাই, তখন হেরম্ব নামের উৎপত্তি অমরকোষ রচনার অন্ততঃ এক শতাব্দী পূর্বে হইয়াছিল বলিয়া মনে করিলে তাহা অসঙ্গত হইবে কি ? তর্কপ্রিয় পাঠক হয়ত বলিবেন যে, এ বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্তে উপনীত হইবার । পূৰ্বে অমরকোষের গণেশ বিষয়ক শ্লোকটি প্রক্ষিপ্ত কি না, তাহারও বিচার আবশ্যক। এইরূপ সন্দিগ্ধচিত্ত পাঠকের অবগতির জন্য এ স্থলে ইহা বলা আবশুক যে, অমরকোষের অতি প্ৰাচীন টীকাকার ক্ষীরস্বামী এই শ্লোকের টীকা রচনা করিয়াছেন। ক্ষীরস্বামী কাশ্মীরের রাজা জয়াপীড়ের (৭৫১ খ্ৰী:-৭৮২খ্ৰীঃ) গুরু ছিলেন। তিনি স্বীয় টীকায় স্থানে স্থানে পূৰ্ববত্তী ২/৩ জন টীকাকারের নামোল্লেখ করিয়াছেন, দৃষ্ট হয়। ক্ষীরস্বামীর পূর্ববত্তী টীকাকারেরা যদি আলোচ্য শ্লোকটিকে প্ৰক্ষিপ্ত বলিয়া নির্দেশ করিয়া থাকিতেন, তাহা হইলে ক্ষীরস্বামীর টীকায় সে বিষয়ের আলোচনা বা উল্লেখ থাকিত, এরূপ অনুমান আমরা করিতে পারি। রামায়ণাদির টীকা দৃষ্টে অবগত হওয়া যায় যে, প্ৰক্ষিপ্ত শ্লোক সম্বন্ধে এইরূপ আলোচনা করা সে কালের টীকাকারদিগের রীতিসঙ্গত ছিল। কাযেই অমরকোষের আলোচ্য শ্লোকটিকে প্ৰক্ষিপ্ত মনে করিবার কারণ নাই। পক্ষান্তরে গ্রন্থের ভূমিকায় অমরসিংহ যখন লিখিয়াছেন যে, তিনি “সমাহৃত্যান্যতন্ত্রাণি” অর্থাৎ পূৰ্ববৰ্ত্তী কোষগ্রন্থসমূহের সারসঙ্কলন করিয়া আলোচ্য কোষগ্রন্থখানি রচনা করিয়াছেন, তখন অমরের পূর্ববত্তী কোষগ্রন্থেও গণেশের হেম্বরাদি নাম লিপিবদ্ধ ছিল, এরূপ অনুমানও করা যাইতে পারে। . অমরকোষের ন্যায় বরাহ প্ৰণীত ‘বৃহৎ সংহিতার কথাও বিজয় বাবুর স্মৃতিপথ হইতে বিচুত হইয়াছে, দেখিতেছি। ‘বৃহৎ সংহিতার” ৫৮ অধ্যায়ে বরাহমিহির বিবিধ দেবপ্রতিমার লক্ষণ ও পরিমাণাদির বিচারপ্রসঙ্গে গণেশের নামোল্লেখ করিয়াছেন, Qሻቔ፬ ቐ፲ጃ $- वभक्षषिcoों विभू: eलश्रखनः कूर्यांबक्षांौ छां९। একবিষাণোবিভ্রন্মলেককন্দং মুনীলদলকািন্দৰ।। ৫৮৫৮ বরাহ ৪২৭ শকাব্দের (৫০৫ খ্ৰীঃ অঃ) লোক ছিলেন ; বিজয় বাবু যদি বরাহমিহিরকে দক্ষিণ-ভারতীয় গ্ৰন্থকার বলিয়া প্ৰতিপন্ন করিবার চেষ্টা না করেন, তাহা হইলে বলিতে পারি যে, ৫০০ খ্ৰীষ্টাব্দে উত্তর ভারতে গণেশের প্রতিমা গড়িয়া পূজা করা হইত। পাশ্চাত্য পণ্ডিতেরা অমরসিংহকেও ৫০০ খ্ৰীষ্টাব্দে আবিভূতি বলিয়াই সিদ্ধান্ত করিয়া থাকেন। কিন্তু বরাহের গ্রন্থে রামোপাসনার উল্লেখ ও অমর