পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (প্রথম বর্ষ).pdf/৩৪৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ཨའ༦་ལས་སོག་ཚོ། ཉག་ག་སོ--ས་གང་གil | r ওসমান আপন অধিকার বিস্তৃত করিতে চেষ্টা করিতেছিলেন। এই সময় অনেক পাঠান ময়মনসিংহে, ঢাকায় ও চট্টগ্রামে আসিয়া বাস করিতে থাকে। ইহারা এই সময় প্ৰজাগণের নিকট হইতে করাগ্রহণ করিতে পারিত না। সুতরাং তাহারাও অনেক সময় নিরীহ প্ৰজাগণের ধনসম্পত্তি লুষ্ঠিত করিত। এইরূপ নানা উপদ্রবে। পূর্ববঙ্গের প্রজাগণ নিঃস্ব হইয়া পড়িয়াছিল। মোগল শাসকগণও সেই নিঃস্ব প্ৰজার নিকট হইতে রীতিমত কর আদায় করিতে পারিতেন না। এই কারণে পূর্ববঙ্গের এই ব্যাপারে দিল্লীর বাদসহ জাহাঙ্গীরের মনোযোগ স্বতঃই আকৃষ্ট হইয়াছিল। বাঙ্গালা, বিহার এবং উড়িষ্যার নবাব জাহাঙ্গীর কুলী খাঁর মৃত্যুর পর দিল্লীশ্বর জাহাঙ্গীর বুঝিলেন যে, সমগ্ৰ বঙ্গ, বিহার এবং উড়িষ্যা একই নবাবের শাসনাধীন রাখিলে পূর্ববঙ্গের এই অশান্তি সহজে লোপ পাইবে না। সুতরাং তিনি “আফজল খাৱ হন্তে বিহারের এবং সেখ আলাউদ্দীন ইসলাম খাঁর হস্তে বাঙ্গালার শাসনভার ন্যস্ত করেন । এই সেখ ইসলাম খাঁ ফতেপুরের সেলিম চিন্তির পৌত্র ছিলেন। সেলিম চিন্তির আশীৰ্বাদের ফলেই উদিপুরী বেগমের গর্ভে জাহাঙ্গীরের জন্ম হয়। সেখ ইসলাম খাঁ সেই জন্যই সম্রাট জাহাঙ্গীরের বিশেষ প্রিয়পাত্র ছিলেন। যে সময় ইনি বাঙ্গালার মসনদে উন্নীত হইয়াছিলেন সে সময় রাজমহলাই বাঙ্গালার রাজধানী ছিল। (প্ৰতিভাসম্পন্ন ইসলাম খাঁ পুৰ্বেই বুঝিয়াছিলেন যে, পূর্ববঙ্গে বাঙ্গালার রাজধানী প্রতিষ্ঠিত না করিলে কিছুতেই এই অশান্তির শান্তিবিধান হইবে না। তাই তিনি সিংহাসনে আরোহণ করিয়াই । রাজমহল পরিত্যাগপূর্বক পূর্ববঙ্গে ঢাকা সহরে বাঙ্গালার রাজধানী প্রতিষ্ঠিত করেন। ইহার পর প্রায় সাৰ্দ্ধ শতাব্দী কাল ঢাকা বাঙ্গালার রাজধানী ও দুই শতাব্দী কাল বাঙ্গালার একটি প্ৰধান নগরী রূপে বিরাজ করিয়াছিল। ঢাকার ইতিহাস অত্যন্ত বিস্ময়জনক। খাঁ বাহাদুর সৈয়দ আউলদ হাসান Echoes from Old Dacca aRiare origxis હરે নগরীর ইতিহাস অতি সুন্দর ভাবে বিবৃত করিয়াছেন। বিগত ২২শে ফেব্রুয়ারী তারিখে ঢাকার নর্থব্রুক । হলে ইনি সুললিত ভাষায় ঢাকার প্রাচীন কাহিনী সম্বন্ধে একটি অতি সংক্ষিপ্ত বক্তৃতা করেন। ইহার যত্ন, অনুসন্ধান ও অধ্যবসায়প্রভাবে এই ঐতিহাসিক নগরীর অনেক অতীত কাহিনী সাধারণের নিকট প্ৰকাশিত হইয়াছে। ঢাকা । BBBLBBB gDS DBDBD DD DB DDDSDDDB BDDD DLBDD প্ৰদান করিলাম।