পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (প্রথম বর্ষ).pdf/৩৭২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


est, Yvoy নদীয়া জিলার সিদ্ধ যোগী । ශ්‍රඹීම নদীয়া জিলার সিদ্ধ যোগী । ( বলরামচন্দ্ৰ । ) বঙ্গদেশের ইতিহাসে নদীয়া জিলার নাম, চিরকাল স্বর্ণক্ষরে অঙ্কিত থাকিবে। পশ্চিম বঙ্গে নদীয়া জিলা নানা কারণে প্ৰসিদ্ধ ; নবদ্বীপের সুপ্ৰসিদ্ধ রঘুনন্দন, ন্যায়ের বিধানদান করিয়া সমগ্ৰ বঙ্গে চিরস্মরণীয় হইয়াছেন ; যুগাবতার শ্ৰীচৈতন্যদেব নবদ্বীপধামে অবতীর্ণ হইয়া ভগবৎপ্রেমের বিপুল তরঙ্গে সমগ্ৰ বঙ্গের পাপতাপ ধৌত করিয়াছিলেন। কৃষ্ণনগরাধিপতি মহারাজা কৃষ্ণচন্দ্ৰ বঙ্গের ইতিহাসে সুপ্ৰসিদ্ধ ব্যক্তি। এমন কি, যে দত্ম্যরাজ বিশ্বনাথের নামে একদিন অৰ্দ্ধ বঙ্গ কম্পিত হইত, য়ুরোপে জন্মিলে যে য়ুরোপের ইতিহাসপ্রথিত দাসু্যগণের সমশ্রেণীতে আসন লাভ করিয়া ইতিহাসে ও উপন্যাসে অমর হইয়া থাকিত, সেই বিশ্বনাথও নদীয়া জিলার লোক। ধৰ্ম্মে, সাহিত্যে রাজনীতিতে, কাব্যে,-যাহা লইয়া মনুষ্যত্ব, তাহার সকল বিষয়েই নদীয়ার প্রভাব পরিলক্ষিত হয়। নদীয়া জিলার ফুলিয়া গ্রামে কৃত্তিবাস নামক লে। দরিদ্র ব্ৰাহ্মণ জন্মগ্রহণ করিয়া, মধুর। রামায়ণ-কথায় শতাব্দীর পর শতাব্দী কাল বঙ্গের প্রতিগুহে কাব্যামৃতস্রোত চির-প্রবাহিত রাখিয়াছেন, যতদিন বঙ্গভাষার অস্তিত্ব থাকিবে, ততদিন তাহার নাম ইতিহাস হইতে বিলুপ্ত হইবে না । শ্ৰীচৈতন্যদেবের আবির্ভাবের পর, বহুদিন পৰ্যন্ত নদীয়া জিলার নানা স্থানে নূতন নূতন ধৰ্ম্ম-সংস্থাপকের আবির্ভাব হইয়াছিল। এই সকল ধৰ্ম্ম-সংস্থাপকের বা ধৰ্ম্ম-সম্প্রদায়-প্ৰবৰ্ত্তকের জীবন-কথা ও তঁহাদের প্রবর্তিত সম্প্রদায়ের ইতিহাস, আমাদের জাতীয় ভাষায় সযত্নে সংগৃহীত হইবার যোগ্য । কিন্তু এ জন্য এ পৰ্য্যন্ত প্ৰায় কোন লেখকই কোনরূপ চেষ্টা করেন নাই ; চেষ্টা করিলেও তঁহাদের সেই চেষ্টা বিশেষ ফলবতী হয় নাই। কেবল অক্ষয়কুমার দত্ত মহাশয় তাহার প্রণীত “ভারতবর্ষীয় উপাসক সম্প্রদায়” নামক অত্যুৎকৃষ্ট গ্রন্থে অতি সজোপে সেই স্বনামধন্য সিদ্ধ পুরুষগণের কথার উল্লেখ করিয়াছেন ; কিন্তু তত্ত্বলিন্স, পাঠকগণের তাহাতে ভুপ্তিলাভের সম্ভাবনা নাই। আমরা এই প্ৰবন্ধ সুপ্ৰসিদ্ধ বলরামি সম্প্রদায়ের’ প্ৰবৰ্ত্তক বলরামচন্দ্রের জীবন-চরিত ও তাহার ধৰ্ম্মমতাসম্বন্ধে আলোচনা করিব । s বাঙ্গালা দ্বাদশ শতাব্দীর শেষভাগে নদীশ শলার অন্যতম উপবিভাগ মেহের ܗ