পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (প্রথম বর্ষ).pdf/৪২৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ভক্তের হৃদয়ে ভক্তিমন্দাকিনী স্বতঃ তার তার তরঙ্গে প্ৰবাহিত হইবেই হইবে, ভক্তের নয়ন প্রেমাশ্রতে ভাসিয়া যাইবে, ভক্তের শরীর প্রেমপুলকে কণ্টকিত । হইবে। পুস্তকখানির লিখনভঙ্গী বড়ই মধুর। এরূপ গ্রন্থের বহুল প্রচারে । সমাজের যথেষ্ট উপকার আছে। সকলেই কিছু আর ইহকাল পরকাল, জীবাত্মার সহিত্তি পরমাত্মার সম্বন্ধ, কৰ্ম্মফল প্রভৃতি জটিল তত্ত্বের দার্শনিক বিচার করিতে" সমৰ্থনহেন। কেবলমাত্র শুষ্ক জ্ঞানের সাহায্যে সাধারণ লোক নাস্তিক্যবুদ্ধির ; ঘূর্ণবৰ্ত্ত হইতে নিস্তার পায় না। শুক, সনাতন, কণােদ, গৌতম, ব্যাস, পতঞ্জলি ? প্রভৃতির ন্যায় মনস্বী লোক জগতে দুলভ। সুতরাং সাধারণ লোক সহজেই । পাপের পথে প্ৰলুব্ধ হইয়া থাকে। ভক্তিই সাধারণ মানুষকে,-প্রবৃত্তি-তাড়িত । অজ্ঞানতা-পীড়িত মানবকে—সেই পাপের পিচ্ছিল পথ হইতে সহজে দূরে রক্ষা । করে। ভক্তচরিত্রই মানব-হৃদয়ে সহজে ভক্তির উৎস উৎসারিত করিয়া দেয় । , ভক্তের চরিত সাধারণ লোকের আদর্শ। সেই আদর্শ অতি উচ্চ হইলে সাধারণ মানুষ সে আদর্শের সন্নিহিত হইতে পারে না, অনেকে সে আদর্শের সন্নিহিত হইতে । চেষ্টা করিলেও নৈরাশ্যাশনি-প্ৰস্থত হইয়া পাপপঙ্কে প্রোথিত হইয়া যায়। সেইজন্য সাধারণ মানবকে পাপের হস্ত হইতে নিস্তার করিবার জন্য গণপতি ভট্ট, বলরাম দাস, বিশ্বম্ভর দাস, দীনবন্ধু দাস, বন্ধু মহাপ্তি প্ৰভৃতির ন্যায়। ভক্তেরচরিত পাঠ করিতে দেওয়া কৰ্ত্তব্য । বলরাম দাস পাপী হইয়াও ভগবদ্ভক্তির বলে ভগবানের সাক্ষাৎকার লাভ করিল, বন্ধু মহান্তি বন্ধুভাবেই জগন্নাথকে ডাকিয়া ভগবানের শ্ৰী পদে স্থান পাইল, গণপতি ভট্ট গজেন্দ্ৰবদন গণেশরূপী ভগবানকে । আরাধনা করিয়াছিল বলিয়া ভগবান জগন্নাথ সেই রূপেই তাহাকে দেখা দিলেন, . এই সকল দেখিলে সাধারণ লোক ভক্তির গথে অগ্রসর হইতে উৎসাহিত হয়। ভক্তির পথে কিছু দূর অগ্রসর হইলেই কামনা, বাসনা প্রভৃতি কাটিয়া যায়, মানব- “ হৃদয় বিমলানন্দে বিভোর হইয়া উঠে, জ্ঞানের আলোক স্বতঃই হৃদয়ে সহস্ৰ সুৰ্য্যের তেজে উদ্ভাসিত হইয়া থাকে। সুতরাং সামাজিক পাপদমনের উদ্দেশ্যে । এরূপ গ্রন্থের প্রচার নিতান্ত আবশ্যক। আশা করি, গোস্বামী মহাশয়ের এই | ‘ভিক্তের জয়’ বাঙ্গালীর ঘরে ঘরে বিরাজ করিবে । গ্রন্থের ভাষা অতি সুন্দর, সরল ও ভাবময়। ছাপা, কাগজ ও বাঁধাই অতি | উত্তম। গ্ৰন্থকার একজন পরম ভক্ত ; সুতরাং তাহার লেখনীমুখে ভক্তির পুতপ্রবাহ ছুটিয়াছে, ইহাতে বিস্ময়ের বিষয় কিছুই নাই।