পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (প্রথম বর্ষ).pdf/৬৫৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


. . . . । थांछ 片* আমরা এই পুস্তকখানির প্রচারে পরম পুলকিত হইয়াছি। লেখক যথার্থই বলিয়াছেন,-“স্বাস্থ্যের সহিত খাদ্যের অতি নিকট সম্বন্ধ। খাদ্য দ্বারা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে অনেক ব্যাধিরই উৎপত্তি হইয়া থাকে। " • ১৮ শরীর রক্ষা রূপ মহৎ কাৰ্য সম্পন্ন করিবার জন্য যে খাদ্যের প্রয়োজন হয়, সেই খাদ্য সংগ্ৰহ যে অনিয়ন্ত্রিত ভাবে চলিতে পারে, ইহা যিনি মনে করেন, তিনি নিতান্ত অদূরদর্শ। খাদ্যের সহিত সাধারণের স্বাস্থ্য বিশেষভাবে সংশ্লিষ্ট। যথা পরিমাণ খাদ্যের অভাবে জাতিগত দৌৰ্ব্বল্যের আধিক্য হয়। * * জাতিগত দৌৰ্ব্বল্যের দ্বারা সাধারণের মধ্যে নানাবিধ রোগের বিস্তার প্রবলভাবে লক্ষিত হয়। * * কোন জাতির মধ্যে রোগের প্রাবল্য হইলে ঐ জাতি শীঘ্ৰ দারিদ্র্য-পীড়িত হইয়া পড়ে। কৰ্ম্মক্ষম লোক রোগগ্ৰস্ত হইলে সমগ্ৰ জাতির আয়ের হ্রাস হইত্মা থাকে, সুতরাং দেশে দারিদ্র্য বৃদ্ধি পাইতে থাকে। এবং ইহা পুনরায় রোগবৃদ্ধির ও অকাল মৃত্যুর সহায়তা করে।” লেখক মহাশয় অভিজ্ঞ ও বিশেষজ্ঞ ; তিনি আলোচ্য পুস্তকে খাদ্য সম্বন্ধে যে আলোচনা . कद्विब्राहछन, তাহা বাঙ্গালী গৃহস্থ ও গৃহিণীমাত্রেরই অবশ্য পাঠ্য। পুস্তকখানি কেবল বৈজ্ঞানিক আলোচনায় পূর্ণ নহে ; পরস্তু অত্যাবশ্যক বিষয়ের সরল আলোচনা। লেখক মহাশয় ইহাতে আমাদের নিত্যব্যবহাৰ্য্য খাদ্য ও পানীয়- উভয়েরই গুণাগুণ বিচার করিয়াছেন। এই পুস্তক পাঠে পাঠক আর একটি বিষয় জানিতে পরিবেন। আজকাল ভেজালের বাহুল্যে বিশুদ্ধ খাদ্য দ্রব্য পাওয়া দুষ্কর হইয়া উঠিয়াছে। সর্ষপ ঠু তৈলে খনিজ “নুমলেস অয়েল” স্বতে পচা চৰ্বি,-এ সকলের সংমিশ্রণে সাধারণের স্বাস্থ্যনাশ হইতেছে। কিছুদিন পূর্বে বিখ্যাত “ল্যানসেট" পত্রে % লিখিত হইয়াছিল, লণ্ডনে বিক্ৰীত দুগ্ধের দশভাগের নয় তাগ বিশুদ্ধ নহে। কেহ দুখে জল মিশাইয়া, কেহ দুগ্ধের মাখম তুলিয়া লইয়া, কেহ হন্ধে রং দিয়া বিক্রয় করে। দুগ্ধ যাহাতে নষ্ট না হয়, তজ্জন্য দুগ্ধে কোন কোন ঔষধ * *** খাদ্য-নীচুণীলাল বক্স, এম, বি, এফ, সি, এস প্রণীত। সাহিত্য সভার গ্রন্থপ্রচার