পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (প্রথম বর্ষ).pdf/৬৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Črie, so a বঙ্গীয় নদনদীর জীবন সংগ্ৰাম । 8S তেমনই মুসলমান যুগে হিন্দু ইতিহাস রূপ অমাবস্যা রজনীর সর্বোজ্জ্বল নক্ষত্ৰ রামার্জন-বংশধর পুণ্যশ্লোক ক্ষত্ৰবীরগণের লীলাক্ষে স্থা এবং আদর্শ-ভারতরমণীকুলের বিহারভুমি এই চিতোরতীৰ্থ যে আমি দর্শন করিয়াছি- সে পবিত্ৰ ধূলির পর্শে যে আমি পবিত্র হইয়াছি-ইহাতেই আমি আপনাকে সৌভাগ্যমান বলিয়া বিবেচনা করি । , শ্ৰী সতীশচন্দ্র মুখোপাধ্যায়। বঙ্গীয় নদনদীর জীবন-সংগ্ৰাম । কুলপ্লাবিনী প্ৰবাহিনী পৰ্ব্বতশিখর হইতে প্রবাহিত হইয়া যখন সাগরসঙ্গমে মিশিতে যায়। তখন সে যেন ক্রীড়া ছেলে কখন বা তীর ভাঙ্গিতে কখন বা নূতন পলী স্তর দ্বারা তাহার কলেবর বৃদ্ধি করিতে থাকে। জগতের নিয়মে নূতন পুরাতনের স্থান অধিকার করে। যেমন নূতন ঋতু আসিয়া পুরাতনকে অপস্থত করিয়া দেয়, যেমন নূতন রাজা আসিয়া প্রাচীন নরপতির অধিকার স্বীয় করতলগত করিয়া থাকেন, সেইরূপ বৎসর বৎসর নূতন জলস্রোতঃ আসিয়া প্রবলবেগে পুরাতন তটভূমি ও সিকতারাশি বিভগ্ন ও বিধ্বস্ত করিয়া অন্য স্থানে নুতন চরের সৃষ্টি করিয়া থাকে। প্রবাহিনীর বেগ যত প্রবল হয়, নদী যত প্রখরা হয়, এই চার সৃষ্টি-ক্রিয়াও তত দ্রুত হইয়া থাকে । আমাদের বঙ্গদেশে নদ-নদীর অভাব নাই। পূৰ্ব্ব বঙ্গে ব্ৰহ্মপুল, মেঘনা, পদ্মা, তিস্তা ( ত্রিস্রোতা ) ও পশ্চিম বঙ্গে গঙ্গা, ভাগীরথী, প্রভূতি কত নদ, নদী, উপনদী, শাখানদী প্রবাহিত হইতেছে। পূৰ্ব্বে ব্ৰহ্মপুত্র নদের প্রবাহ যে যে স্থান বিধৌত করিয়া প্রবাহিত ছিল এখন সেই সেই স্থান নদী হইতে বহু দুরে। সেই গতি-পরিবর্তন কেন হইল বর্তমান নিবন্ধে তাহারই আভাস 6७श श्य । নদী সচরাচর উচ্চাদেশ হইতে ক্ৰমশঃ নিম্নতর প্রদেশে ধাবিত হইয়া থাকে। সেইজন্য আমাদিগের সকল নদনদীই উন্নত হিমাচল-পৰ্বত-প্ৰদেশ হইতে উদ্ভূত হইয়া ক্ৰমশঃ বঙ্গদেশের সমতল ভূমি অতিক্ৰম করিয়া সাগরগর্ভে নিপতিত হইয়াছে। প্রবাহিনী যখন উচ্চতর প্রদেশ হইতে নিম্নতর।