পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (প্রথম বর্ষ).pdf/৬৬০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পৌষ, ১৩১৭ সমালোচনা। - ৬৩৫ % প্রয়োগ অত্যন্ত প্রচলিত হইয়া উঠিয়াছে। ১৯০৬ খৃষ্টাব্দে ‘ম্যাকুমিল্যান্স। ম্যাগাজিনে” দুগ্ধবিষয়ক প্রবন্ধে প্ৰবন্ধ-লেখক মিষ্টার পাকুসলী লিখিয়াছিলেন, ১৯০৪ খৃষ্টাব্দে ইংলণ্ডে ও ওয়েলসে মোট মৃত্যুসংখ্যা-৫৪৯৩৯৩ । ইহার মধ্যে এক বৎসরের নূ্যন বয়স্ক শিশুর সংখ্যা-১৩৭৪৯• । পরীক্ষাদ্বারা দেখা । গিয়াছে, এই সকল শিশুর অৰ্দ্ধাংশ যে সকল ব্যাধিতে মৃত্যুমুখে পতিত হই- ? য়াছে—সে সকল ব্যাধির প্রতিরোধ সহজসাধ্য। এক উদরাময়েই ২৮০০° , শিশুর মৃত্যু হয়। পীত দুগ্ধের দোেষই যে অধিকাংশস্থলে উদরাময়োৎপত্তির কারণ, তাহা বলাই বাহুল্য। চুণীবাবু আলোচ্য গ্রন্থে লিখিয়াছেন,-“দুগ্ধ তারতবাসীর জীবনস্বরূপ । । ইহা শিশুদিগের জীবনধারণের একমাত্র উপায় হইলেও পূৰ্ণবয়স্ক ভারতবাসী প্ৰত্যেকেই কোন না কোনও আকারে দুগ্ধ ব্যবহার করিয়া থাকে।।* * * * জীবনধারণের পক্ষে এরূপ অবশ্য প্রয়োজনীয় খাদ্য যে সম্পূর্ণ বিশুদ্ধ হওয়া উচিত, সে বিষয়ে কাহারও ভিন্ন মত হইতে পারে না । দুঃখের বিষয় এই যে এদেশে বৰ্ত্তমান সময়ে সহরে বা পল্লীগ্রামে কোথাও বিশুদ্ধ দুগ্ধ পাওয়া দুষ্কর হইয়া উঠিয়াছে। কলিকাতা সহরে যে সকল গোয়ালী-বস্তি আছে, তথা হইতে প্ৰায় ৪০০০ মণ দুগ্ধ প্রত্যহ সহরে সরবরাহ হইয়া থাকে। এতদ্ব্যতীত কলিকাতার বাহির হইতে রেলওয়ে দ্বারা প্রায় ১০০০ মণ দুগ্ধ প্রত্যহ কলিকাতায় আমদানি হইয়া থাকে। দমদমা, কাশীপুর প্রভৃতি। কলিকাতার সন্নিকটস্থ গ্রাম সমূহ হইতেও প্ৰায় ২০০ মণ দুগ্ধ প্রত্যহ ভাৱে । করিয়া বিক্রয়ের জন্য কলিকাতায় আনীত হয়। বলা বাহুল্য যে ইহায় । কোনটি বিশুদ্ধ দুগ্ধ নহে। এই সকল দুগ্ধে যে শুদ্ধ তেজাল আছে, তাহা নহে ; নানাকারণে এই সকল দুগ্ধের সহিত বহুবিধ সংক্রামক রোগের বীজ, মিশ্রিত থাকিবার সম্ভাবনা। কলেরা, টাইফয়েড জ্বর প্রভৃতি নানাবিদ । সংক্রামক উৎকট রোগ যে অনেক সময়ে দুষিত দুগ্ধ পান করিয়া উৎপন্ন হইয়া । থাকে, তাহা অনেকেই জ্ঞাত আছেন। সংক্রামক-রোগ-দুষ্ট পুষ্করিণী ঘাঁ | কুপের জল দ্বন্ধের সহিত মিলাইয়া দুগ্ধকে এইরূপ বিষাক্ত করা হয় ?” ইহা । যে অত্যুক্তি নহে তাহা আর বলিয়া দিতে হইবে না। “পশ্চিম হইতে যে | স্বতের আমদানি হয়, তাহার সহিত সচরাচর চীনের বাদামের তৈল বা | মহুয়ার তৈল বা পোস্ত বীজের তৈল ভেজাল থাকে। ইহার মধ্যে চৰ্বি । ভেজাল বড় বেশী থাকে না। কলিকাতার মধ্যে ও ইহার সন্নিকটস্থ "টুই