পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (প্রথম বর্ষ).pdf/৬৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


(R আৰ্য্যাবৰ্ত্ত । » R Kś-YT YRINT সামান্য চর হইতে এত উচ্চ ভূমিখণ্ডে পরিণত হইল, সেই বিষয় আলোচনা করিতে যাইয়া নিৰ্দেশ করিয়াছিলেন যে, এই মধুপুর জঙ্গলস্থ প্রদেশসমূহ কোন প্রকার “উৰ্দ্ধগমন। ফলে” উখিত হইয়াছে এবং সেইজন্যই ব্ৰহ্মপুত্র নদের প্ৰবাহ মেঘনা ও শ্ৰীহট্টের ‘বিলের” দিকে প্রবাহিত হইয়াছে। কিন্তু এ কথা সহজে স্বীকার করা যায় না। কারণ তাহা হইলে সমস্ত, প্রদেশেই বহু নৈসৰ্গিক চিহ্ন প্ৰকটিত থাকি ত..। আর যদি মধুপুর জঙ্গল এই প্রকার উৰ্দ্ধগমনজন্য উচ্চতা লাভ করিয়া থাকে তাহা হইলে ব্ৰহ্মপুত্র নদের প্রবাহ সাধারণতঃ ও স্বভাবতঃ পশ্চিম দিকে ধাবিত হইত । তিব্বতের সাম্পু নদীর জল পাইয়া ব্ৰহ্মপুত্রের শক্তি বিকাশ করিবার সুবিধা হইয়াছে। পূৰ্ব্বে মানচিত্রে সম্পূর প্রবাহ-পথ অন্তরূপ প্ৰদৰ্শিত হইত ; কিন্তু মিষ্টার রেনেল ১৭৬৫ খৃঃঅব্দে স্থির করেন যে, সাম্পূর জল ডিহাং নদী হইয়া ব্ৰহ্মপুত্রে, পতিত হইতেছে। এই জল না পাইলে ব্ৰহ্মপুত্রের এত শক্তি বিকাশ বোধ হয় সম্ভবপর হইত না । আর মিষ্টার বরাভঁ ও মিষ্টার হেডিন যাহা বলিয়াছেন, তাহাতে স্পষ্টই প্ৰতীত হয় যে, এই জলাগমের পূর্বে ব্ৰহ্মপুত্র নন্দ গঙ্গা নদী অপেক্ষী নিস্তেজ ও অল্পশক্তিসম্পন্নছিল। আর সেই জন্যই গঙ্গার আনীত পলী স্তরসস্তুত মধুপুর : চর বা আধুনিক মধুপুর জঙ্গল ব্ৰহ্মপুত্রের প্রবাহকে স্থান ভ্ৰষ্ট করিয়া দিয়াছিল। কিন্তু যখন ডিহাং নদী দিয়া সাম্পূর জল একত্রিত হইয়া ব্ৰহ্মপুত্ৰে আসিয়া পড়িল তখন ব্ৰহ্মপুত্রের গতি আ প্ৰতিহত হইয়া উঠিল । অধুনা আবার তিস্তা নদীর ‘বিশ্বাঘাতকতায়’ গঙ্গার যে পরিমাণ ক্ষতি হইয়াছে ব্ৰহ্মপুত্রের সেই পরিমাণ শক্তিবৃদ্ধি হইয়াছে। ১৭৮৭ খ্ৰীঃঅব্দে তিস্তানদীর জল, গঙ্গা-বক্ষ প্রবাহিত না করিয়া সহসা ব্ৰহ্মপুত্ৰে আসিয়া পড়ে ; আর সেই অবধি ব্ৰহ্মপুত্রের শক্তি অত্যন্ত বাড়িয়া উঠে । ইহার ফল কি হইবে তাহ প্ৰথমে কেহ বুঝিতে পারে নাই । ইহার পর হইতে গঙ্গার ও ব্ৰহ্মপুত্রের সংগ্ৰাম আরব্ধ হইয়াছে, সংগ্রামের শেষ হইয়া যে ফলাফল নিৰ্দ্ধারিত হইয়াছে এমন মনে হয় না। হয়ত ভবিষ্যতে এই সংগ্ৰাম ফলেই বঙ্গের ভবিষ্যৎ সম্পূর্ণ নূতন ভাবে গঠিত হইবে। ব্ৰহ্মপুত্ৰ এখন যেরূপ ক্ষমতাশালী, তাহাতে সে যে তাহার বর্তমান অবস্থায় সন্তুষ্ট থাকিবে এমন বোধ হয় না। কারণ, যত দিন পৰ্যন্ত আসামের উপত্যক প্রদেশ সম্পূর্ণ ভাবে সমতলাকার ধারণ না করে, ততদিন ব্ৰহ্মপুত্র দ্বীয় তেজ ও পরাক্রম