পাতা:আশুতোষ স্মৃতিকথা -দীনেশচন্দ্র সেন.pdf/২৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


. . . . . . - <nt-fast V ኞኅ t . বংশের নরেন্দ্রনারায়ণ সপ্তদশ শতাব্দীর শেষ ভাগে ভুরসুট পরগণার রাজা হইয়াছিলেন। এই নরেন্দ্রনারায়ণের পুত্ৰ ভারতচন্দ্র রায়গুণাকর (২৬ পৰ্য্যায়ে) অষ্টাদশ শতাব্দীর প্রথম ভাগে কবিত্বের যশে সমস্ত বঙ্গদেশ উজ্জল করিয়াছিলেন। কৃত্তিবাস ও ভারতচন্দ্ৰ এই দুই কবি প্ৰাচীন বঙ্গ-সাহিত্যের দুই যুগ-প্ৰবৰ্ত্তক বিখ্যাত ব্যক্তি এবং একই বংশোদ্ভব। ভারতচন্দ্রের পরে উনবিংশ শতাব্দীর মধ্যভাগে মুখোপাধ্যায় বংশের এই শাখায় হরিশ্চন্দ্ৰ ‘হিন্দু-পেটিয়ট’ সম্পাদন করিয়া বহু মান ও শ্রদ্ধা অর্জন করিয়া গিয়াছেন । এই বংশের অনেকেই সংস্কৃতের পাণ্ডিত্যের সঙ্গে বঙ্গভাষার প্রতি প্ৰগাঢ় অনুরাগের পরিচয় f帝丕忆豆可1 নৃসিংহ ওঝার সহোদর রাম মুখে ফুলিয়া গ্রামের যে অংশে বাস স্থাপন করেন, তাহ “ছোট ফুলিয়া” নামে পরিচিত হয়। আশুতোষের পিতামহ বিশ্বনাথের গৃহে যে কুল-পঞ্জী রক্ষিত ছিল, তাহাতে ১৪ পৰ্য্যায়ে রাম মুখোর নাম লিখিয়া এক, দুই ক্ৰমে পুরুষোত্তম ও তাহার বংশধরগণের নাম প্রদত্ত হইয়াছে। ইহাতে স্পষ্টই বুঝা যাইতেছে, পুরুষোত্তম রামের ধারার অধস্তন বংশধর। কিন্তু পুরুষোত্তমের পিতা, পিতামহের নাম দেওয়া হয় নাই। সচরাচর গৃহ-পঞ্জীতে ৫৬ পুরুষের নামই দেওয়া হয়, যে হেতু শ্ৰাদ্ধাদি ধৰ্ম্মকাৰ্য্য-সম্পাদনের জন্য উৰ্দ্ধতন কয়েকটি পুরুষের নামই প্রয়োজনীয়। যে সময়ে উক্ত গৃহ-পঞ্জী সঙ্কলিত হইয়াছিল, সে সময়ে ব্ৰাহ্মণ-সমাজের ঘটককারিক অনেকের বাড়ীতেই থাকিত। সুতরাং ৪/৫ পুরুষের নাম পাইলেই, তাহাদের পূর্ববৰ্ত্তিগণের নাম সহজেই পাওয়া যাইত। কিন্তু আজকাল ঘটককারিকাগুলি দুষ্মপ্রাপ্য হইয়াছে এবং র্যাহারা ফুলিয়া ছাড়িয়া গিয়াছেন বা ভঙ্গ হইয়াছেন, তাহদের নাম প্ৰসিদ্ধ ঘটকীকারিকাগুলিতে অনেক সময়ে বর্জিত হইয়াছে। এই কারণে রাম হইতে পুরুষোত্তম কতটা দূরবর্তী মহেন্দ্র বিদ্যানিধি তাহা খুজিয়া পান নাই। আমি নানা কুলপঞ্জী দেখিয়া রামের পরবর্তী একটি বংশলতা সংগ্ৰহ করিয়াছি, এখানে তাহ প্ৰদত্ত হইল ; কিন্তু এই বংশলতায়ও পুরুষোত্তমের নাম পাওয়া গেল না। অনেক সময়ে যে গৃহের বা যে শাখার বংশাবলী এই সকল গৃহ-পঞ্জীতে সঙ্কলিত হয়, তাহাতে। g怀55西 হরিশচন্দ্ৰ