পাতা:আশুতোষ স্মৃতিকথা -দীনেশচন্দ্র সেন.pdf/৮১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


शश९७१ात्रौ 8 ठेवहेि! »ra কাৰ্যোর প্রতিবাদ করিতে লাগিলেন, তাহা জানি না । আমার ལྟ་ তাহার কোনই বিরোধ ছিল না ; তথাপি যখন দেখিতাম, তঁাহার চিরাভােস্ত প্ৰসন্ন মূৰ্ত্তিতে আমার উপর বিরক্তির ভাব সুস্পষ্ট, তখন দুঃখিত হাইতাম। কিন্তু কিসে যে কি হইল, অমৃত-সিন্ধু মন্থন করিতে করিতে, হঠাৎ কি করিয়া গরল উঠিল, তাহা এখনও আমার নিকট প্ৰহেলিকা श्छेश। अछि । কিন্তু আর একজন-সম্বন্ধে এই রূপ রহস্যের কতকটা সমাধান হইয়াছিল। হরিনাথ দে যখন বিলাত হইতে ফিরিয়া আসেন, তখন তাহার বহু ভাষার উপর বিস্ময়কর অধিকার এবং অদ্ভুত পণ্ডিতা আমাদিগকে भू করিয়াছিল। এইরূপ গুণী ব্যক্তিকে পাইয়া আশুবাবুর আনন্দের অবধি ছিল না। সৰ্ব্ব বিষয়ে তিনি হরিনাথকে স্মরণ করিতেন ; অত্যন্ত্র সময়ের মধ্যে র্তাহার পদোন্নতি করিয়া দিয়া তিনি তঁাহার প্রতিষ্ঠা বৃদ্ধি করিলেন। হরিনাথের সম্বন্ধে অনেকে অনেক কথা বলিত, আশুবাবু তাহা গ্রাহ করেন নাই। তিনি শুধু দেখিতেন হরিনাথের প্ৰতিভা, তাহার ল্যাটিন, গ্ৰীক প্রভৃতি ভাষায় আশ্চৰ্য্য দখল। তঁহার লাটিনে লেখা কবিতা লইয়া তিনি গৌরব করিতেন,-ল্যাটিনের মত শক্ত বিদেশী, প্রাচীন ভাষায় কবিতা লিখিয়৷ হরিনাথ যুরোপে যশঃ অর্জন করিয়াছিলেন । ইংরাজ পণ্ডিতদেরও লেখা দুঃসাধ্য। কালিদাসের সময় এবং সমুদ্রগুপ্ত ও কুমার গুপ্তের সম্বন্ধে তাহার কাব্যের ইঙ্গিত ইত্যাদি নানা মৌলিক তত্ত্বের উপর হরিনাথের প্ৰতিভা রশ্মিপাত করিয়াছিল। এই গুণে আশুতোষ হরিনাথকে ভালবাসিতেন, তাহার জীবনের সার কথা তো এইগুলি। যাহা অসার ও ক্ষণ-বিধ্বংসী, জীবন-কথার সেই সকল অংশের উপর তিনি কোন জোর দেন নাই,-তাহা গ্ৰাহ করেন নাই। তবুও কেন গ্ৰীতির এই সুবৰ্ণ-বন্ধন ভাঙ্গিয়া গেল এই দুর্ঘটনার আভাষ আমি পাইলাম একদিন সন্ধ্যাকালে, তখন এসপ্ল্যানেড জংসনে হরিনাথ পায়চারি করিতেছিলেন। আমাকে দেখিয়া ईशि अनिश डिनि *** दिशा দাড়াইলেন। তঁহার পিতা আমার