পাতা:ইংরেজ ডাকাত - প্রিয়নাথ মুখোপাধ্যায়.pdf/২৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

২৬

দারোগার দপ্তর, ৩৩ম সংখ্যা।


নাই; কিন্তু তাহাদিগের কোনরূপ সন্ধান করিতে সমর্থ না হইয়া পরদিবস প্রাতঃকালে পুলিসে সংবাদ প্রদান করিয়াছিলেন।

 এই সকল দেখিয়া শুনিয়া সাহেব ও আমি সেই জেল হইতে বহির্গত হইয়া, পলাতক কয়েদীদ্বয়ের অনুসন্ধানে নিযুক্ত হইলাম। কিন্তু কোন‍্স্থানে গমন করিব, কোন্ পথ অবলম্বন করিলে তাহাদিগের সন্ধান পাইতে পারি, তাহার কিছুমাত্র স্থির করিয়া উঠিতে পারিলাম না। কারণ, এমন কোনস্থান বাকি ছিল না, যে দিকে অপরাপর কর্ম্মচারীগণকে প্রেরণ করা না হইয়াছে। পরিশেষে উভয়ে যুক্তি করিয়া প্রথমে হাবড়া রেলে দেখাই স্থির করিলাম। কারণ, সেই পথ দিয়া ওয়ার্ণার আর একবার পলায়ন করিয়াছিল। হাবড়ায় গিয়া দেখিলাম, সম্মুখে গাড়ি সুসজ্জিত। তখন তাহাতে উঠিয়াই চলিলাম—বর্দ্ধমান। প্রথমে বর্দ্ধমানে অনুসন্ধান করিলাম, কোন সন্ধান পাইলাম না। সেইস্থান হইতে চন্দননগরে ও পরিশেষে সেওড়াফুলিতে আসিলাম; সেস্থানেও কোন সন্ধান পাওয়া গেল না। এইরূপে দুই একটী ষ্টেশন অনুসন্ধান করিলাম; কিন্তু সে দিবস কোন সন্ধান না পাইয়া রাত্রি বারটার সময় কলিকাতায় প্রত্যাগমন করিলাম। রাত্রি দুইটা পর্য্যন্ত উভয়ে পরামর্শ পূর্ব্বক স্থির করিলাম যে, এরূপভাবে অনুসন্ধান করিলে চলিবে না। হাবড়া হইতে আরম্ভ করিয়া প্রত্যেক ষ্টেশনে গমন করিব, ও সেই সেইস্থানে থাকিয়া রীতিমত অনুসন্ধান করিতে করিতে, ক্রমে বর্দ্ধমান পর্য্যন্ত গমন করিতে থাকিব, এবং আবশ্যক বিবেচনা করিলে ক্রমে আরও অধিক দূর গমন করিব।