পাতা:ইংলণ্ডের ডায়েরি - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/২২৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


স্বদেশাভিমুখে As ইংরাজ-প্ৰকৃতি ও জার্মান-প্ৰকৃতিতে এই প্ৰভেদ দেখিতেছি যে, জার্মানগণ সহজে লোকের সঙ্গে মেশে। এ মেয়েটি আপনা হইতে আমার সঙ্গে কত কথা বলে ; কত কি দেখায়। কালা মানুষের উপর বড় ভয় ; বলে,-“আই য়্যাম সরি গড় হাজ মেড দেম ব্ল্যাক”। আমি বলিলাম-নো ফায়ার, ইউ উইল ফাইণ্ড মেনি গুড মেন য়্যাণ্ড উইমেন য়্যামঙ্গস্ট দীজ ব্ল্যাকস। উত্তর-আই হোপ সো। আমি পুনরায় বলিলাম-য়্যাণ্ড পারহপস ইউ উইল ল্যভ দেম, আফটার ইউ হ্যাভ স্টেইড দেয়ার সাম টাইম । উত্তর-নো, আই শা’ণ্ট ল্যভ দেম, আই মে জ্যাস্ট লাইক দেম। তখন বুঝিলাম, ইংরাজী ভাষাতে “ল্যভ’ ও ‘লাইক’-এর ঢের তফাত । ‘ল্যভ’ শব্দের অর্থ প্ৰেম নহে, কিন্তু প্ৰণয় । একটি সামান্য চাকরানী, এ পড়ে, দৈনিক লিপি লেখে, ও প্রার্থনাপুস্তকাদি সর্বদা সঙ্গে রাখে। আমাদের ব্ৰাহ্মসমাজের বিষয় শুনিতে অতিশয় আগ্ৰহ । ইংরাজের সদগুণাবলী এই কয়েক মাস ইংলণ্ডে বাস করিয়া ও নানা প্ৰকার সদনুষ্ঠানের আয়োজন দেখিয়া ইংরাজ জাতির যে-যে সদগুণ চক্ষে পড়িয়াছে ও মনে লাগিয়াছে, তাহা এই :- (১ম)। ইহাদের স্বাবলম্বন প্ৰবৃত্তি : কোন ভাল কাজ করিতে, কোন অন্যায় নিবারণ করিতে ইহারা পরের মুখাপেক্ষপ কয়ে না। অন্য কে কি করিবে, তাহা আগে না ভাবিয়া, আমি কতটুকু করিতে পারি, সেই চিন্তাতে য়ত হয় ; এবং সেইটুকু করিবার জন্য যত্ন করে। (২য়) সত্য ও সাধুতার জয় হইবে-এ বিশ্বাস ইহাদের মনে অতি প্ৰবল ; ইহার উপরে নির্ভর করিয়া সকল শ্রেণীই কাজ করিতেছে। ইহাতেই প্ৰকাশ যে, এই জাতি ঈশর বিশ্বাসী ; এমন কি যাহারা আপনাদিগকে নাস্তিক ও ধর্মবিরোধী বলিয়া পরিচয় দেয়, তাহদের মধ্যেও এই সম্ভাব দৃষ্ট হয়। (৩য়) ইহারা সাধু চেষ্টাতে পৱিশ্ৰান্ত হয় না ; এই সদগুণ পূর্বোক্ষ বিশ্বাসপ্রবণতা হইতেই সভূত। '