পাতা:ইন্দ্রচন্দ্র.pdf/১০০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


సిలీ ਵੋਸ਼ੁਝਲ਼ | ঠাকুরাণী পুত্র বধুকে ক্রোড়ে লইয়া গৃহে গেলেন । এখানেও মাঙ্গলিক কার্য্যের কোন ক্রট হইল না। পাকস্পশ্ব, ফুলশয্যা প্রভৃতি সুশৃঙ্খলে সমাধা হইল, ঘরের লক্ষ্মী ঘরে অসিলেন, ইশ্রচন্মের বিবাহ হইল । পঞ্চদশ পরিচ্ছেদ ।

  • അമ്മയജ്ജ്

বিরহে মিলন । “ভুল যায় কি কথার কথা মন যার মনে গtথা । শুখাইলে তরু কভু ছাড়ে কি জড়িত লতা ॥” বিদ্যাস্থলদর । বিধির বিপাকে এই তিন দিন ইন্দ্রচন্দ্র সরস্বতীর চাদমুখ দর্শনে বঞ্চিত হইয়াছিল । তিন দিনে ইন্দ্র চন্দ্রের তিন যুগ গিয়াছে ; প্রাণটী ঠোঁটের অtগায় আপিয়াছিল,—অার একটু হইলেই বাহির হইয়া পড়িত ; কিন্তু কি জানি কি পূৰ্ব্ব পুণ্য বলে বাহির হয় নাই। বিবাহের দিন হইতে ফুল শয্যার রাত্রি দুই প্রহর পর্য্যন্ত ইন্দ্রচন্দ্র বাটতে থাকিয়া আর পারিলেন না । পৌর জনেরা ইন্দ্রচন্দ্রকে নৰবধু সহ একত্রে শয়ন করিতে দিয়৷ অনেকক্ষণ পর্য্যস্ত পরস্পরে কি কথা হয় শুনিবার নিমিত্ত বাহিরে দঁাড়াইয়া রহিলেন । কিন্তু তাহদের মনোভিলাষ পূর্ণ হইল না ; কোন কথা শুনিতে পাইলেন না । কথা কহিলে তবেতে শুনিতে পাইবেন ? কথা কহিবে কে ? :ইন্দ্রচন্দ্রের গুণ কোথায় ? -