পাতা:ইন্দ্রচন্দ্র.pdf/১০৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ষোড়শ পরিচ্ছেদ । 'o శ్రీ) cছন তাহার কিছুই সংবাদ রাখেন না । তিনি ম রাখিলেও পৌরজনের। রাখিতে বাধ্য । ইন্দ্রচন্দ্র রাত্রে ঘরে থাকেন না ; একথা প্রথমে নববধূ দুই চারি জন সমবয়সীর কাছে প্রকাশ করিল ; তাহীদের নিকট হইতে লীলাবতীর কর্ণে উঠিল । লীলাবতী আদরের পুল্লকে অনেক বুঝাইলেন, “বাৰ। এমন কাজ আর করে না ; তোমার বিয়ে হয়েছে, আজ বাদে কাল ছেলে হবে” ইত্যাদি মেয়েলি উপদেশ ও দিলেন ; কিন্তু বাৰ, “এসব মিছে কথা, আমি কোথাও যাই ন’ বলিরা উড়াই স{ দিলেন । কৰ্ত্ত শুনিলে পাছে ইন্দ্র চন্দের পক্ষে কোন ক্ষতি হয়, এই ভয়ে লীলাবতী এতাবৎ একথ। তাহার নিকট অপ্রকাশ রাপিয়াছেন । - মন্দ কথাটা সহজেই লোকের কাণে উঠে বলিয়া স স্বতীর BBBBBB BBBB BBBB BBBB BBBBSB BBBB S BBBBS সে কাণ করিয়া ক্রমে জমিদার মহাশয়ের কর্ণে উঠিল ; তিনি আরও শুনিলেন যে এ কৰ্ম্ম ইন্দ্র চন্ত্রের দ্বার হইয়াছে । এই ব্যাপারে ইন্দ্র চন্দের নাম সংযুক্ত থাকায় তিনি প্রথমে বিশ্বাস করেন নাই ; কারণ তিনি স্বয়ং উপস্থিত থাকিয়া ইন্দ্র চষ্ট্রের বিবাহ দিয়াছেন । কিন্তু মাষ্টার মহাশয় সা দহ ভঞ্জন করিয়া দিলেন ; বলিলেন, “আমি স্বয়ং ইন্দ্রচন্দ্রকে তথার যাইতে দেখিয়াছি।” বল। বাহুল্য ইন্দ্র চন্দ্র প্রত্যহ রাত্রে অন্দরের উদ্যান প্রাচীর উল্লম্ফন করিয়া বাটীর বহির হন, তাহা ও গোপন রাখি লেন না । মাষ্টার মহাশয়ের মুখে মানুপূৰ্ষিক বৃতান্ত শুনিয়া চট্টেt পাধ্যায় মহাশয় বিষম ক্রুদ্ধ হইলেন। বলিলেন, “তাইতে মাষ্টার পাজি বেটী আমার ছেলেটাকে খারাপ করলে ; সাবার