পাতা:ইন্দ্রচন্দ্র.pdf/১৩৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


একবিংশ পরিচ্ছেদ । రి, যথাকলে গাড়ী আসিয়া বাসায় পৌছিল, সকলে গাড়ি হইতে অবতরণ করিলেন । লীলাবতী রন্ধন করিতে গেলেন । অন্তদিন পুত্রবধূ মহামায়া শ্বশ্র ঠাকুরাণীর রন্ধনের উদ্যোগ করিয়া দেন কিন্তু আজ দিল না, সরস্বতীর পুত্রকে লইয়াই মহ। ব্যস্ত,কাজেই লীলাবতী স্বহস্তে সমস্ত কাৰ্য্যই করিতে লাগিলেন । পাক সমাধা হইলে লীলাবতী একে একে সকলকে আহার করাইলেন । সকলের অtহার সমাপন হইলে সরস্বতীর নিকট গন্ন করিতে আরম্ভ করিলেন । প্রায় ছয় বৎসর কাল সরস্বতী দেশত্যাগিনী হইয়াছে, সুতরাং কোন সংবাদই জনিত না । ক্রমে জানিল তাহার মাতার মৃত্যু হইয়াছে। তাহার নিৰ্ব্বাসনের পর হইতে রাজকুমার নিরুদেশ, রাজকুমারের স্ত্রী পিত্রালয়ে ; জমিদার চন্দ্রশেখর চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যু হই য়াছে। জাল উইল করিয়া ভাগিনেয় কৃষ্ণপন সমস্ত বিষয়ের উত্তরাধিকারী হইয়াছে। এই উইল লইয়। ইন্দ্রচন্দ্রে কৃষ্ণধনে মকৰ্দমা হয় ; বিচারে ইন্দ্রচন্দ্র পরাস্ত হয়, তাহাতেই তাহার মৃত্যু হয় । ইন্দ্র চন্দ্রের মৃত্যু হইয়াছে শুনিয়া সরস্বতীর চক্ষে জল আসিল, আর কেহ দেখিতে পাইল না কেবল মহামায়। দেখিল । গ্রহণের স্নান ফুরাইল ; বিদেশী লোকের গৃহাভিমুখে রওনা হইলেন। লীলাবতী, পুত্রবধু সরস্বতী, তাহার পুত্র, দাস দাসী ইত্যাদি লইয়া দেশে চলিলেন । নৌকা তিন দিন অবিরাম চলিয়া চারি দিনের দিন প্রাতে ঘাটালের গড়ের ঘাটে পৌঁছিল। তথা হইতে ভুলি করিয়া সকলে গৌরাঙ্গপুরে পৌছিলেন। অদ্য ছয় বৎসরের পর সরস্বতী আবার জন্মভূমি দেখিল । সরস্বতীকে দেথিবীর জন্ত দলে দলে লোক জমিদার AASAASAASAASAASAASAAAS