পাতা:ইন্দ্রচন্দ্র.pdf/১৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ੇ । হরে থানসাম, চট্টোপাধ্যায় মহাশয়ের ক্রোধানল হইতে অব্যাহতি পাইবামাত্র-সম্মুখে ইন্দ্রচন্দ্রকে দেখিতে পাইল চট্টোপাধ্যায় মহাশয়ের নিকট ধমক খাওয়ায় হরিচরণের একটু অভিমান হইয়াছিল ; ইন্দ্র চন্দ্রকে সম্মুখে দেখিয় তাহার প্রতিশোধচুকু তাহারই উপর দিয়া লইতে ইচ্ছা হইল, সুতরাং হরে ইন্দ্রচন্দ্রকে দেখিয়াও দেখিল না—পাশ কাটাইয়া চলিল। হরে চলিয়া যায় দেখিয়া, ইন্দ্রচন্দ্র জিজ্ঞাসা করিলেন, “হ্যারে হরে, সেধো নাকি বাবার কাছে নালিস কভে এসেছিল ?” হরে উত্তর দিল না দেখিয়া ইন্দ্রচন্দ্র পুনরায় জিজ্ঞাসা করিলেন, “কিরে কথা কচ্চিস না কেন ?” । ইন্দ্রচন্দ্র দুইবার জিজ্ঞাসা করিলেন দেখিয়া, হরে মনে মনে বুঝিল আর উত্তর না দেওয়াটা ভাল নয়, সুতরাং নাকি স্বরে यशिल, “ठां८ख्छ ई '? x “আজ্ঞা ই কিরে বেটা, ভাল ক’রে কথার জবাব দেন।” হ। আজ্ঞা হঁ। এসেছিল । । * ই । তারপর কি হ’লে ? - হরিচরণ পূৰ্ব্বাপেক্ষা সুরের ওজন আর একটু চড়াইয়। লইল। বলিল, “হলে আর কি, বড়লোকের ফাড়া গরীবের উপর দিয়ে গেল।” - দুই তিনবার জিজ্ঞাসা করিয়াও যখন ইন্দ্রচন্দ্র ব্যাপারট{ ভালরূপ বুঝিতে পারিলেন না, তখন হরের উপরে রাগ হইল। বলিলেন, “ৰেট বড়লোকের ফঁাড় গরীবের উপর দিয়ে যাবে না তবে কি বড় লোকের উপর দিয়ে যাবে? তৰে গরীব কোন কাজের জন্তে ? এখনও ভোর ফাড় যায় নাই ; কি হয়েচে ভেঙ্গে বল, নাইলে তোর এই ৰাকুড়া চুল টেনে