পাতা:ইন্দ্রচন্দ্র.pdf/৬৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ड्रेटझकव्छ । ج ريا পেয়েচে ।” কেহ বলিল,“ত নয় ; ডাকাতে মাঠে কে একতাল সোণ ফেলে গিয়াছিল তাই পেয়েচে ।” কেহ বলিল, “এক সন্ন্যাসী রাজকুমারের দুঃখ দেখে এক থানা পাথর দিয়েচে, সেট যাতে ঠেকে তাই নাকি সোণ হয়।” ফল কথা অনেকে অনেক প্রকার কল্পনা করিল । রাজকুমারের ভগিনীর কানে ও তাহার কতক কতক উঠিল ; তিনিও ঠেস দি মা অনেককে গালি দিলেন,—অনেকের সঙ্গে অনেক রকম ঝগড়াও করিলেন । রাজকুমারের মাতা কিন্তু রাজকুমারের অবস্থা ফিরিয়াছে শুনিয়া ও অর গৃহে আসিলেন না ; রাজকুমারও ডাকিল না । বৰ্ব্বর স্ত ধনক্ষয় শাস্ত্রের লিখন ;—মিথ্যা হইবার নহে । টাকা কয়ট পাইয়। রাজকুমার দিন কয়েকের মধ্যে তাঙ্গার গয়া গঙ্গ। গদাধর হরি করিল,—তাবার যে নাই সেই নাই । আবার অদ্য মাষ্টার মহাশয়ের নিকট উপস্থিত ; আদ্য ও মাষ্ট্রার মহাশয় রাজকুমারকে দুই চারি টাকা দিয়। বিদায় দিলেন । রাজকুমার তাহাতেই সন্তুষ্ট ; টাকা কয়টা পাইয় তাহার দ্বারা আবার দুষ্ট চারি দিন চালাইল । রাজকুমারের হাতে পয়সা থাকিলে মাষ্টীর মহাশয়ের নিকট যাইবার অবসর থাকে না । অদ্য রাজকুমারের হাতে পয়দা নাই, কাজেই প্রভাত হইতে না হইতেই রাজকুমার পোষ্ট মাষ্টার বাবুর বাসায় উপস্থিত । পোষ্ট মাষ্টার বাবু গৌরাঙ্গপুরের ডাকঘর হইতে সম্প্রতি বদলী হইয়াছেন, কাজেই মাষ্টার” মহাশয় আর পোষ্ট মাষ্টার বাবুর বাসায় আইসেন না । রাজকুমার কিন্তু তাহ জানিত না । মাষ্টার মহাশয়ের আগমন প্রতীক্ষায় রাজকুমার কাহাকে কিছু না BBBS BBB BB BB BBB BBB BBB S BBBBBB