পাতা:ঐতিহাসিক চিত্র (তৃতীয় বর্ষ) - নিখিলনাথ রায়.pdf/১৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কেদার রায়। ] Y NO ব্ৰিটাে সেই সময়ে কৌশলপুর্বক আরাকানরাজের অধিকারস্থ পেগুর সাইরাম বন্দর অধিকার করিয়া বসে। সেলিম সা পটুগীজদিগের এরূপ ব্যবহারে ক্রোধান্ধ হইয়া সনদ্বীপ অধিকারের জন্য পুনর্বার সহস্ৰখানি রণতরী পাঠাইয়া দিলেন। রণতরীসমূহ তোপধ্বনি • করিতে করিতে বঙ্গোপসাগরের হৃদয়ে তরঙ্গ তুলিয়া সনদ্বীপে উপস্থিত হইল। কার্ভালোও নিশ্চিন্ত ছিলেন না। তিনি আপনার অধীন পটুগীজ সৈন্য ও কেদার রায়ের প্রেরিত বাঙ্গালী সৈন্যদিগকে আপনি আপন রণতরীতে সজ্জিত করিয়া বিপুল উদ্যমে সেই বিরাট নৌশ্রেণীর সহিত অগ্নিক্রীড়া করিবার জন্য প্ৰস্তুত হইলেন। তঁহাদের রণকৌশল ও অমানুষিক সাহসে মাগদিগের রণতরীসমূহ ছিন্ন ভিন্ন হইতে লাগিল। তাহদের কতকগুলি বঙ্গোপসাগরের অতল গর্ভে নিমজিত হইল। কতকগুলি কামান ও বন্দুকের গোলায় দগ্ধ হইয়া গেল। অবশিষ্টগুলি ইতস্ততঃ বিক্ষিপ্ত হইয়া পড়িল । এই ভীষণ জলযুদ্ধে মাগদিগের প্রায় দুই সহস্ৰ সেনা হত ও ১৩) খানি রণতরী দগ্ধ হইয়া যায়, এবং তাহারা ফিরিঙ্গা ও বাঙ্গালীর অদ্ভুত বীরত্বে সন্ত্রস্ত হইয়া উঠে। এই যুদ্ধেও কার্ভালো জয় লাভ করেন, এবং তাহার নাম সমস্ত বঙ্গদেশে প্রচারিত হইয়া পড়ে। সেলিম সঁ কাপুরুষতার জন্য আপন সেনাপতি দিগকে যার পর নাই তিরস্কার করিয়াছিলেন । কার্ভালো এই যুদ্ধে জয়লাভ করিলেও তাহার রণতরীসমূহের কতক ভগ্ন ও কতক নষ্ট হইয়া যায়, তিনি আবার আপনার নৌশ্রেণী গঠনের জন্য সনদ্বীপ পরিত্যাগ করিয়া শ্ৰীপুরে উপস্থিত হইলেন, এবং শ্ৰীপুর, বাকলা ও সাগরৰীপে তাহার রণতরীসমূহের সংস্কার ও নূতন রণতরী সমূহের নিৰ্ম্মাণ হইতে লাগিল। শ্ৰীপুরে কার্ভালোর নিকট ৩০ খানি রণতরী অবস্থিত ছিল । কার্ভালো সনদ্বীপ পরিত্যাগ করিলে আরাকানরাজ তাহা অধিকার করিয়া বসেন । কেদার রায় তাহার পুনরুদ্ধারের জন্য মনোনিবেশ করিতে না করিতে আর এক ভীষণ শত্রু বিজয়ভেরী বাজাইয়া তাহার রাজ্যে উপস্থিত হয়। যে সময়ে সনৰীপ লইয়া ঘোরতর অগ্নিক্রীড়া চলিতেছিল, সেই সময়ে, মানসিংহ বাঙ্গালার সুবেদার ছিলেন। তিনি পুর্ব বঙ্গের অনেক স্থান অধিকার করিয়া কেদার