পাতা:ঐতিহাসিক চিত্র (তৃতীয় বর্ষ) - নিখিলনাথ রায়.pdf/৩৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


७8 ঐতিহাসিক চিত্ৰ। প্ৰাণেও ঈশ্বরপরায়ণতায় হাফেজকে এজগৎ ছাড়া কোন অজানা অচেনা দেশের লোক বলিয়া প্ৰতীতি হয়। খাজা সামসুদ্দীন মহম্মদ হাফেজ খৃষ্টীয় চতুৰ্দশ শতাব্দীর প্রারম্ভে পারস্তের অন্তৰ্গত শিরাজ নগরে উচ্চবংশে জন্মগ্রহণ করেন। শৈশবে তিনি রীতিমত সুশিক্ষা পাইয়াছিলেন। কাব্য ও ধৰ্ম্মশাস্ত্ৰ তাহার প্রধান শিক্ষার বিষয় ছিল। কবির কবিত্ব শিশুকাল হইতে বিকাশ পায়। অতি শৈশবে হাফেজ কবিতা রচনা করিতে পারিতেন। একদিন তাহার পিতৃব্য মুক্তিধৰ্ম্মমতানুসারে একটি কবিতা রচনা করিতেছিলেন ; কবিতার একটি চরণ মাত্র রচনা হইয়াছিল৷ ৷ ” এমন সময়ে তাহার পিতৃব্য কাৰ্য্যগতিকে গৃহান্তরে যাওয়া মাত্ৰ হাফেজ আতি সুন্দর ভাবে উক্ত কবিতার পাদপূরণ করিয়া দেন। তখন তাহার পিতৃব্য তাহাকে সম্পূৰ্ণ কবিতাটি লিখিতে আদেশ করেন এবং তিনিই তঁাহাকে এই বলিয়া অভিশাপ দেন ;-“তোমার কবিতা যে পড়িবে, সেই পাঠকই উন্মাদরোগগ্ৰস্ত হইবে।” এই প্ৰবাদ বাক্য তদবধি চলিয়া আসিতেছে। তুর্কদেশীয় সিয়াগণ এখনও ইহা বিশ্বাস করেন। স্তাফো, পেটার্ক, ও শেলীর মত হাফেজের পদাবলীতে এক প্রকার উন্মাদিনী শক্তি আছে। তাহার পিতৃব্যের অভিশাপ রূপ প্রবাদের মূলে কতটুকু সত্য নিহিত আছে, জানি না। তবে প্ৰেমিক কবির প্রাণের কথা ভাষায় ব্যক্তি হইলে, সে প্রেমের গানে যে মন্ত্রশক্তি থাকে, তাহা বিশ্বাস করি এবং সেই শক্তি বলে যে পরের মনপ্ৰাণ হরণ করিতে । পারে, তাহা নিশ্চিত সত্য। হাফেজের প্রাণোচ্ছাস বহুদেশে বহুজনকে পাগল করিয়াছে । * • *(.*জের অভিশাপের সত্যতাসম্বন্ধে দুই এক স্বানে জ্বলন্ত দৃষ্টান্ত দেখা গিয়াছে। বঙ্গীয় কবি , ১৯৮১-৮ মজুমদ14 পারসীক ভাষায় সুপণ্ডিত ও হাফেজের একজন পরম ভক্ত ছিলেন। ; LaLLiiSLDt gtDDSDLD gBBDLDBD BDB DDBDBD DBDBDLu Biii BB BDBDBS DBDD DuGS কৱিৰাংলো- ঊাহর সর্বপ্রধান গ্ৰন্থ “সম্ভাবশতকের অধিকাংশ কবিতা হাফেজ হইতে iDi igEDDBD D BDB ED DD DDB S DiBBLBLBBD DD DBBDB DD DBS CDBS