পাতা:করিম সেখ - জলধর সেন.pdf/১১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


করিম সেখ Φζ 9 মানুষ ভাবে এক, বিধাতা করেন আর। এনাতুল্লা মনে করিয়াছিল, আগামী বৎসরও খুব শস্য হইবে, সুতরাং ঋণ শোধ হইয়া, তাহার পশ্চিমের ভিটায় একখানি বড় ঘর উঠিবে। কিন্তু তাতার আশা স্বপ্নে পরিণত হইল। উপৰ্য্যুপরি দুইটি বৎসর বড়ই অজন্মা গেল। ক্ষেতে যে কিছু শম্ভ জন্মিল তাহাতে সংবৎসরের খোরাকি চলাই ভার হইল। শুধু এনাতুল্লার বলিয়া নহে, করিমের পিতার ক্ষেত্ৰেও তেমন শস্ত জন্মিল না ; সকলের মুখে একই কথা, “এবার কি উপায় হবে ?” বিপদের উপর বিপদ। সহসা একদিন এনাতুল্লার জর হইল। সামান্য জ্বর, তার আর কি ? দুই দিন উপবাস দিলেই সারিয়া যাইবে। গরিব মুসলমানের কথায় কথায় ডাক্তার কবিরাজ ডাকিতে পারে না, ডাকিবার সামর্থ্যও নাই। তাহারা জ্বরে ভোগে, উপবাস করে, পাড়ার লোকে যে যাহা বলে সেই সকল টােটকা ব্যবহার করে ; বাড়াবাড়ি হইলে দুই পয়সার কুইনাইন খায়। শেষে যদি পরমায়ু থাকে, তবে বাচিয়া উঠে, নতুবা জীবলীলা শেষ করে। এনাতুল্লার জ্বরেও সেই ব্যবস্থাই হইল। দিন দুই উপবাসের পরও যখন জর গেল না, তখন প্ৰতিবেশী বৃদ্ধ সলিম মণ্ডল কি একটা টোটুকা ঔষধ দিল ; তাহাতেও জ্বর গেল না, আরও বাড়িয়া উঠিল। তাহার পর একদিন রাত্রিশেষে এনাতুল্লা সকলকে ফাঁকি দিয়া চলিয়া গেল। বসিরাদি চারিদিক অন্ধকার দেখিল। সংসারে মাতা ও যুবতী। পত্নী, ঘরে অন্নাভাব ; তাহার উপর মহাজনের ঋণ! সে কি